advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কেরানীগঞ্জে ননদের ছোড়া গরম তেলে দগ্ধ গৃহবধূসহ ৪

কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি
২৫ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৫ মে ২০১৯ ০৯:৩০
advertisement

রাজধানী ঢাকার অদূরে কেরানীগঞ্জে শ্বশুরবাড়িতে ছোড়া গরম তেলে এক গৃৃৃৃহবধূসহ চারজন দগ্ধ হয়েছেন। তারা হলেন- গৃহবধূ শানু আকতার (২২), প্রতিবেশী আরমান (২১), তুহিন (২৩) ও মেহেদী (১৬)। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার পারহাউস এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। দগ্ধরা পারহাউস এলাকার বাসিন্দা। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার দুপুরে শানু আকতারের স্বামী অলি মিয়া, শ্বশুর নূর হোসেন, শাশুড়ি সাজেদা বেগম, তিন ননদ লিপি বেগম, ফেন্সি বেগম ও মিতু বেগমকে আটক করেছে পুলিশ।

দগ্ধ গৃহবধূ শানু আক্তারের বাবা শফুরউদ্দিন জানান, পাঁচ মাস পূর্বে প্রতিবেশী অলি মিয়ার সঙ্গে তার মেয়ের বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রী বাসা ভাড়া নিয়ে সংসার জীবন শুরু করে। বিয়ের পর জানা যায়, শানুর স্বামী নেশাগ্রস্ত। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে সাংসারিক মনোমালিন্য শুরু হয়। মাঝে মধ্যে শানুকে মারধর করত অলি। গত ৩ দিন ধরে অলি মিয়া বাসায় না ফেরায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শানু শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে তার খোঁজ করেন।

এ সময় অলি মিয়া শানুকে মারধর করে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়। পরে ৩ প্রতিবেশীকে নিয়ে রাত ১০টার দিকে শানু পুনরায় শ্বশুরবাড়ি গেলে লোকজন দেখে তারা ক্ষুব্ধ হয় এবং একপর্যায়ে অলি মিয়ার বড় বোন লিপি আক্তার বাসার চুলায় থাকা গরম তেল নিক্ষেপ করেন। এতে শানুসহ ৪ জন দগ্ধ হয়। এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নিয়ে যায়।

ঢামেক বার্ন ইউনিট সূত্রে জানা যায়, শানুর শরীরে ৬ শতাংশ, আরমানের ৬, মেহেদীর ৭ ও তুহিনের ১২ শতাংশ ঝলসে গেছে। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যোবায়ের জানান, এ ঘটনায় শানু আক্তারের বাবা মামলা দায়ের করেছেন। ইতোমধ্যে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।