advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নমুনা ডিম সংগ্রহের অপেক্ষায় জেলেরা

চট্টগ্রাম ব্যুরো ও হাটহাজারী প্রতিনিধি
২৬ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৬ মে ২০১৯ ০১:০০
advertisement

শুক্রবার রাতে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে গতকাল শনিবার সকালে এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদায় নমুনা ডিম ছেড়েছে মা-মাছ। ডিম সংগ্রহে জেলেরা নৌকা ও জাল নিয়ে অপেক্ষা করছেন হালদায়। ফলে ডিম আহরণের অপেক্ষায় চট্টগ্রামের হালদা নদীর পাড়ে এখন উৎসবের আমেজ।

জেলেদের সঙ্গে স্থানীয় হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারা, হালদা বিশেষজ্ঞ ও গবেষণা টিমের সদস্যরা নদীর পারে অবস্থান করছেন।

চট্টগ্রামের রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলায় হালদা নদীর সত্তার ঘাট, অংকুরী ঘোনা, মদুনাঘাট, গড়দুয়ারা, কান্তার আলী চৌধুরী ঘাট, নাপিতের ঘোনা ও মার্দাশা এলাকায় ডিম সংগ্রহকারীরা অপেক্ষায় আছেন। মা-মাছ ডিম ছাড়লেই শুরু হবে সংগ্রহের উৎসব।

পরিবেশ অনুকূলে থাকায় এশিয়ার অন্যতম বড় প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজননক্ষেত্র চট্টগ্রামের হালদা নদীতে শনিবার রাতে মা মাছ ডিম ছাড়তে পারে বলে আশা করছেন ডিম সংগ্রহকারী ও বিশেষজ্ঞরা।

হালদা নদী গবেষক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মো. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, পর্যাপ্ত পরিমাণে বৃষ্টি হয়েছে। পাহাড়ি ঢলও আছে। পরিবেশ ডিম ছাড়ার অনুকূলে। নমুনা ডিম ছেড়েছে।

শনিবার রাতে পূর্ণমাত্রায় ডিম ছাড়তে পারে মা-মাছ। হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন জানান, প্রায় ৪০০ নৌকা নদীতে অপেক্ষা করছে। ডিম ছাড়লেই যাতে দ্রুত সংগ্রহ করতে পারে সে জন্য রয়েছে যাবতীয় প্রস্তুতি।

ইঞ্জিনচালিত কোনো নৌকা কিংবা বালি তোলার ড্রেজার যাতে প্রবেশ করতে না পারে, তার কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

হালদা বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতিবছর পূর্ণমাত্রায় ডিম ছাড়ার আগে নমুনা ডিম ছাড়ে মা মাছ। পরিবেশ ডিম ছাড়ার জন্য উপযুক্ত কিনা তা দেখতেই মা-মাছ অল্প পরিমাণে ডিম দেয়, যা নমুনা হিসেবে পরিচিত।

নমুনা ডিম ছাড়লেই পূর্ণমাত্রার ডিম ছাড়ার জন্য অপেক্ষা শুরু হয়। চট্টগ্রামের রাউজান ও হাটহাজারী উপজেলার প্রায় ৯৮ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে হালদা নদী।

প্রতি বছরের চৈত্র থেকে আষাঢ় মাসের মধ্যে পূর্ণিমা-অমাবস্যার তিথিতে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হলে পাহাড়ি ঢল নামে হালদা নদীতে। তখনই তাপমাত্রা অনুকূলে থাকলে ডিম ছাড়ে কার্প জাতীয় মাছ। সাধারণত মধ্য এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে হালদায় ডিম ছাড়ে মা-মাছ।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বলেন, ডিম সংগ্রহকারীরা জানিয়েছেন তারা নদীতে মা-মাছের আনাগোনা দেখছেন এবং অল্প নমুনা ডিম সংগ্রহ করতে পেরেছেন।