advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ধর্মের নামে রাজনীতি নিষিদ্ধের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৭ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৭ মে ২০১৯ ০১:১২
advertisement

জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় সরকার, নাগরিক সমাজ ও জনগণকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। এ লক্ষ্যে ধর্মের নামে রাজনীতি অবিলম্বে নিষিদ্ধ করার পাশাপাশি ৭ দফা প্রস্তবনাও তুলে ধরেছে সংগঠনটি। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘বাংলাদেশে আইএসের নতুন হুমকি ও কার্যক্রম : সরকার ও নাগরিক সমাজের করণীয়’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এসব প্রস্তাব তুলে ধরেন সংগঠনের সভাপতি শাহরিয়ার কবির।

প্রস্তাবগুলোর মধ্যে রয়েছে- ধর্মের নামে রাজনীতি অবিলম্বে নিষিদ্ধ করা; ওয়াজ ও খুৎবার নামে ইসলামকে অসহিষ্ণু ধর্ম বানাবার অপচেষ্টায় লিপ্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া; ফেসবুক ও ইউটিউব কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বসে অবিলম্বে^ বি™ে^ষ ও উš§দনা সৃষ্টিকারী প্রচার বন্ধ করা এবং প্রচারকদের শাস্তির আওতায় আনা; জঙ্গি, মৌলবাদী কার্যক্রমের

ওপর নজরদারি বাড়ানো এবং সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলা; মাদ্রাসা শিক্ষাকে মানবিক ও যুগোপযোগী করার পাশাপাশি সব শিক্ষা মাধ্যমে বাঙালির ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পাঠ বাধ্যতামূলক করাসহ মাধ্যমিক পর্যন্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করা।

লিখিত বক্তব্যে শাহরিয়ার কবির বলেন, ২০১৬ সালে গুলশানের হোলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় নৃশংস হত্যাকা-ের পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জঙ্গি দমনে উল্লেখযোগ্য সাফল্য প্রদর্শন করেছে। তবে জঙ্গি দমনই যথেষ্ট নয়, জঙ্গিদের আদর্শ ও রাজনীতিকে নির্মূলের জন্য সমন্বিত কার্যক্রমও পরিচালনা করতে হবে।

অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন বলেন, প্রশাসনের সামনেই ওয়াজ ও খুৎবার মাধ্যমে শান্তি ও সহমর্মিতার ধর্ম ইসলামকে অসহিষ্ণুতা, ঘৃণা ও সন্ত্রাসের সমার্থক বানাবার অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। অথচ সরকারের প্রশাসনযন্ত্র তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। এ ব্যাপারে কঠোর ভূমিকা নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।