advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ধর্ষণের সমালোচনার মধ্যেই নেইমারের নতুন ভিডিও ভাইরাল!

স্পোর্টস ডেস্ক
৮ জুন ২০১৯ ১২:০০ | আপডেট: ৮ জুন ২০১৯ ১৪:৫৭

সমালোচনা যেন কোনোভাবেই পিছু ছাড়ছে না নেইমার দ্য সিলভার। ব্রাজিলের তারকা ফুটবলারের বিরুদ্ধে সম্প্রতি ধর্ষণের অভিযোগ আনেন এক তরুণী। প্যারিসের এক হোটেলের ঘরে ডেকে নিয়ে নেইমার তাকে ধর্ষণ করেছিলেন বলেই দাবি ছিল নাজিলা ট্রিনডেড মেন্ডেস ডি সুজা নামে ওই তরুণীর। সেই বিতর্কের রেশ কাটতে না কাটতেই এবার নেইমার-নাজিলার নতুন এক ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিররের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভাইরাল হওয়া ভিডিওর সত্যতা যাচাই করা না হলেও তা নিয়ে অস্বস্তিতে ব্রাজিল ফুটবলমহল। এতে দেখা যাচ্ছে, একটি হোটেল রুমে নেইমারের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন নাজিলা। তারপর তাকে মারধরও করেন ওই তরুণী। নেইমারও তাকে পাল্টা মারধর করেন।

advertisement

এ সময় নেইমারকে বলতে শোনা গেছে, ‘না, না, না, আমাকে আঘাত করো না।’

জবাবে ২৭ বছর বয়সী নাজিলা বলেন, ‘না? তুমি আমাকে আঘাত করে এসেছিলে, না?’

এরপর সে বিছানা থেকে উঠে নেইরামকে আঘাত করতে করতে তার দিকে কিছু একটা ছুঁড়ে মারে। এ সময় নাজিলা বলেন, ‘আমি তোমাকে আঘাত করবো। কেন জানো? কারণ তুমি গতকাল আমাকে এখানে লাঞ্ছিত করেছো। আমাকে এখানে রেখে গেছো।’

এক মিনিট পাঁচ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটি গোপনভাবে ধারণ করা হয়েছে এবং ভাবা হচ্ছে এটি নেইমার-নাজিলার দ্বিতীয় সাক্ষাতের মুহূর্ত।

এদিকে দ্বিতীয় ভিডিও সম্পর্কে নাজিলার আইনজীবী জানিয়েছেন, তার মক্কেল ইচ্ছা করেই দ্বিতীয় সাক্ষাতের মুহূর্তটি ধারণ করেছেন। তিনি দেখাতে চেয়েছেন, নেইমার তাকে কীভাবে হেনস্থা ও ধর্ষণ করেছিলো।

এ প্রসঙ্গে নেইমারের বাবা বলেন, ‘আমার মনে হয় না নেইমারের পক্ষ নিয়ে আমার আর কিছু বলতে হবে। ভিডিওটি দেখে সহজেই বোঝা যাচ্ছে, সেদিন নেইমারকে হেনস্থা করা হয়েছে। ওই তরুণীর আক্রমণের প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলো নেইমার। সে (নেইমার) বুঝতে পেরেছে, তাকে ফাঁসানোর জন্য সবকিছুই সাজানো হয়েছিলো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার ছেলে যখন রুমটিতে প্রবেশ করে ঠিক তার আগ থেকেই রুমের সবকিছু ক্যামেরায় ধারণ করা হয়। এর ফলে সামনের তদন্তগুলো জন্য আমাদের খুব উপকার হবে।’

বার্তা সংস্থা এপির বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, গত ১৫ মে রাত ৮টা ২০ মিনিটে প্যারিসের একটি হোটেলে তাকে ধর্ষণ করেন নেইমার। আর এটি নিয়ে শুক্রবার ব্রাজিলের সাও পাওলো পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন ওই তরুণী।

পুলিশকে তিনি বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে খুদে বার্তা আদান-প্রদানের পর ফ্রান্সে নেইমারের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হয়। গাল্লো নামে নেইমারের এক প্রতিনিধি তাকে প্যারিসে আসার টিকিট কিনে দেন এবং হোটেলে থাকার ব্যবস্থাও করেন।

অভিযোগকারী ওই তরুণী জানান, নেইমার ‘পুরো মাতাল’ হয়ে হোটেলে আসেন এবং তারা একজন আরেকজনকে স্পর্শ করলেও একটি নির্দিষ্ট মুহূর্তে নেইমার আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন এবং তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেন। এ ঘটনায় মানসিকভাবে ভীষণ বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় তাৎক্ষণিকভাবে প্যারিস পুলিশের কাছে অভিযোগ করেননি তিনি।

এরপরই ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগকে ‘সাজানো নাটক’ প্রমাণ করতে হোয়াটসঅ্যাপে নাজিলার সঙ্গে তার কথোপকথন এবং ওই নারীর সঙ্গে বেশ কিছু অন্তরঙ্গ ছবি প্রকাশ করেন। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইন্সটাগ্রামে ৭ মিনিটের একটি ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেন তিনি।

ভিডিও বার্তায় নেইমার বলেন, ‘আমি সবকিছু শেয়ার করেছি এবং পুরো কথোপকথন যা ছিল ওই তরুণীর সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত মুহূর্ত।’ তবে ধর্ষণের বিষয়টিকে অস্বীকার করে ওই তরুণীর অভিযোগকে একটি ‘ফাঁদ’ বলে মন্তব্য করেছেন নেইমার।

নেইমারের এসব ছবি ও কথোপকথন প্রকাশের বিষয়টি পুলিশও নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ জানিয়েছেন, এসব সংবেদশীল ছবি প্রকাশের বিষয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। এটি তদন্ত করে দেখছেন রিও ডি জেনিরো শহরের বিশেষজ্ঞ সাইবার ক্রাইম ইউনিট।

এর আগে নেইমারের বাবা দাবি করেছেন, ঘটনাটি সাজানো এবং তার ছেলেকে ব্ল্যাকমেইলের চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে প্রয়োজন হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং সেই প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এই অভিযোগ ওঠার সপ্তাহখানেক আগে ব্রাজিলের নেতৃত্ব হারান নেইমার। এ ছাড়া পিএসজি ফ্রেঞ্চ কাপের ফাইনালে হেরে যাওয়ার পর এক সমর্থকের সঙ্গে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ঘুষি বাগিয়ে তেড়ে গিয়েছিলেন তার দিকে। তাই সব মিলিয়ে সময়টা ভালো যাচ্ছে না নেইমারের।