advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পুলিশের সামনেই মা-ছেলেকে পিটিয়ে মারলো গ্রামবাসী

অনলাইন ডেস্ক
৯ জুন ২০১৯ ১৭:১১ | আপডেট: ৯ জুন ২০১৯ ১৯:২২
advertisement

দুদিন আগে নিখোঁজ হন দুই মাসের শিশু সন্তানসহ এক নারী। অনেক খুঁজেও তাদের পাওয়া যাচ্ছিল না। গত শুক্রবার যখন তাদের সন্ধান পাওয়া যায়, তখন তাদের দেহ ছিল অর্ধগলিত। এ ঘটনা চাউর হওয়ার পর আরেক মা ও ছেলেকে মধ্যযুগীয় কায়দায় পিটিয়ে হত্যা করেছে গ্রামবাসী। পুরো ঘটনা পুলিশ সদস্যদের চোখের সামনে ঘটলেও তারা ছিলেন নীরব দর্শক।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ভারতের আসামের। রাজ্যের তিনসুকিয়ার শিপুর চা বাগানে গত শুক্রবার গণপিটুনিতে হত্যার এই ঘটনার পর দেশটির সংবাদমাধ্যম জি২৪ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বুধবার গ্রাম থেকে হঠাৎ নিখোঁজ হয়ে যান রাধা তাঁতি ও তার ২ মাসের সন্তান। দুদিন নিখোঁজ থাকার পর গত শুক্রবার একটি সেপটিক ট্যাঙ্কের ভেতর থেকে মা ও সন্তানের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় সেখানে পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ ঘটনায় গ্রামবাসী রাধার স্বামী অজয় তাঁতি ও তার মা যমুনা তাঁতিকে সন্দেহ করে। এর জের ধরেই তাদের দুজনকে ঘর থেকে বের করে পেটাতে শুরু করে তারা।

বেধড়ক পিটুনিতে মা ও ছেলে মারাত্মক আহত হন। বাঁচার জন্য চেষ্টা করছিলেন তারা। কিন্তু উত্তেজিত জনতার মারের চোটে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় যমুনা তাঁতির। গুরুতর আহত অবস্থায় অজয় তাঁতিকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল শনিবার সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অজয়ের বাবাও।

রাধা তাঁতি ও তার ২ মাসের সন্তানের লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ সদস্যরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তী ঘটনা তাদের সামনে ঘটলেও একেবারে নীরব দর্শকের ভূমিকায় ছিলেন তারা।

এদিকে, পুরো রাজ্যে এ ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

advertisement