advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাজারে বিরূপ প্রভাবের আশঙ্কা চট্টগ্রাম বন্দর

চট্টগ্রাম ব্যুরো
১২ জুন ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুন ২০১৯ ০৯:৪৫
advertisement

চট্টগ্রাম বন্দরে ধারণক্ষমতার চেয়ে প্রায় ৪ হাজার বেশি কনটেইনার জমে যাওয়ায় ব্যবসায়ী মহলে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা বেড়েছে। এ অবস্থায় কনটেইনার জট দ্রুত সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মেট্রো পলিটন চেম্বারের সভাপতি খলিলুর রহমান।

তিনি বলেন, আমদানি পণ্যের চালান সময়মতো খালাস না হলে বাজারে বিরূপ প্রভাব পড়বে; একই সঙ্গে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাবে। দেশীয় শিল্প উৎপাদনে ব্যাঘাত সৃষ্টি হলে রপ্তানির ক্ষেত্রেও নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। বিশেষ করে পোশাক শিল্পের শিপমেন্ট বিঘ্নিত হলে বিদেশি ক্রেতারা অর্ডার বাতিল করতে পারে। ফলে রপ্তানিকারক পোশাক শিল্পের মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

আমদানি পণ্যের কনটেইনার জট দ্রুত খালাস এবং অফডকে রপ্তানিযোগ্য কনটেইনার শিপমেন্ট স্বাভাবিক করতে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট স্টেক হোল্ডারদের সমন্বয়ে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। তা হলেই ব্যবসা-বাণিজ্যের সচল গতি ফিরে আসবে এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম ত্বরান্বিত হবে।

চট্টগ্রাম বন্দরের তথ্য অনুযায়ী, ইয়ার্ডে ৩৭ হাজার ৬২০ টিইইউস (টোয়েন্টি-ফুট ইকোইভ্যালেন্ট ইউনিট) আমদানি পণ্যবাহী কনটেইনার রাখার স্থান রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ধারণক্ষমতার চেয়ে ৩ হাজার ৯২৭ টিইইউস কনটেইনার বেশি ছিল। তার আগের দিন সোমবার ছিল ৪২ হাজার ৯৭৪ টিইউউস; যা ধারণক্ষমতার চেয়ে ৫ হাজার ৩৫৪ টিইইউস বেশি।

advertisement