advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শিশুশ্রম নিরুৎসাহিত করুন

১২ জুন ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ১২ জুন ২০১৯ ০০:১২
advertisement

বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস আজ। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ২০০২ সাল থেকে জুন মাসের ১২ তারিখে দিবসটি পালন করা শুরু করে। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতায় দিবসটি পালিত হবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ শিশুশ্রম নিরসনে ফলপ্রসূ উদ্যোগ নিয়েছে। তবে শিশুশ্রম নিরসনের মতো এত বড় কাজ শুধু সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এ ক্ষেত্রে এনজিও এবং বেসরকারি খাতসহ সমাজের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। শিশুর সামগ্রিক উন্নয়নের বিনিয়োগ হলো সবচেয়ে ইতিবাচক বিনিয়োগ।

শিশুর মাধ্যমে সাময়িক লাভ উপেক্ষা করে দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে। জাতীয় উন্নয়নের ক্ষেত্রে মানবসম্পদ উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। মানবসম্পদ উন্নয়নে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ঝুঁকিপূর্ণ কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় একদিকে শিশুর স্বাস্থ্য ভেঙে যাচ্ছে, অন্যদিকে তারা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। শ্রমদক্ষতা অর্জন ব্যতীত এভাবে চলতে থাকলে বাংলাদেশ সস্তা শ্রমের দেশের পরিচয় ঘোচাতে পারবে না। এটা আমাদের কাম্য নয়।

বিভিন্ন সমস্যার মধ্যেও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের অনেক অর্জন আছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক ক্ষেত্রে আমরা এগিয়েছি। টেকসই উন্নয়নের স্বার্থে রাষ্ট্র, সমাজ ও আমাদের সবার দায়িত্ব শিশুদের অধিকার রক্ষা করা। দেশের কয়েক লাখ শিশু বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে। গণমাধ্যমে বিভিন্ন সময় শিশু নির্যাতনের খবর আমরা পাই। কর্মক্ষেত্রে তারা শিকার হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের।

মূলত দারিদ্র্যের কারণে শিশুরা বিভিন্ন কাজে যুক্ত হতে বাধ্য হচ্ছে। দরিদ্রতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের শ্রমে নিয়োগ করছে। আইএলও কনভেনশনের অনুসমর্থনকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের চেষ্টা থাকা উচিত সব ক্ষেত্রে শিশুশ্রম অবসানে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া।

advertisement