Paran Frooto
advertisement
Paran Frooto
advertisement
advertisement

আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তানে কাঁপছে অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক
১২ জুন ২০১৯ ২২:৫৩ | আপডেট: ১২ জুন ২০১৯ ২৩:০৭
advertisement

অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া টার্গেটে খেলতে নেমে শুরুটা দুর্দান্ত  করে পাকিস্তান। কিন্তু হঠাৎ ধস নামে ব্যাটিং লাইনআপে। অজি বোলিং তোপে এলোমেলো দেখায় হাফিজ-মালিকদের। দুই উইকেটে ১৩৬ থেকে ২০০তে পা না দিতেই দলটি হারিয়ে ফেলে আরও পাঁচ উইকেট!

এবারের গল্প ভিন্ন। পাক অধিনায়ক সরফরাজকে সঙ্গে নিয়ে দুই বোলার ম্যাচের দৃশ্যপট পালটে দিয়েছেন। হাসান আলীর পর এখন ওহাব রিয়াজ অধিনায়কের সঙ্গে জুটি গড়ে দলকে নিয়ে যাচ্ছেন জয়ের বন্দরে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পাকিস্তানের সংগ্রহ সাত উইকেট হারিয়ে ২৬৪ রান। ক্রিজে আছেন সরফরাজ ৪০ ও ওহাব রিয়াজ ৪৫ রানে। জয়ের জন্য ৩৫ বলে ৪৪ রান দরকার ৯২ সালের চ্যাম্পিয়নদের।  

বিশ্বকাপের জন্য ঘোষিত দলে ছিলেন না মোহাম্মদ আমির। শেষ সময়ে তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় পাকিস্তানের বিশ্বকাপ দলে। এই আমিরই প্রতিদান দিচ্ছেন প্রতিটা ম্যাচে। এবার নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে বিপক্ষে দুর্দান্ত বোলিং করে লাগাম টেনে ধরেছেন অস্ট্রেলিয়ার।

টনটনের কাউন্টি গ্রাউন্ডে মোহাম্মদ আমির নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। তার দুর্দান্ত বোলিংয়ে রানের পাহাড় গড়তে পারেননি চ্যাম্পিয়নরা। ৩০ ওভারের আগেই ২০০ রান তুলে ফেলা অস্ট্রেলিয়া শেষ পর্যন্ত থামে ৩০৭ রানে।

এর আগে নির্বাসন থেকে ফিরে বিশ্বকাপে নিজের তৃতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করেছেন ডেভিড ওয়ার্নার। টনটনের কাউন্টি গ্রাউন্ডে ৯৮ বলে তিনি তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারের দেখা পান, তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১৫তম সেঞ্চুরি। তার সেঞ্চুরির ওপর পাকিস্তানকে এ লক্ষ্য দিতে পারে অজিরা।

একটা ছোট পরিসংখ্যানেই বোঝা যায়, অস্ট্রেলিয়ার শেষটা কেমন বাজে ছিল। ৩৪ ওভার চলাকালীন অস্ট্রেলিয়ার রান ছিল দুই উইকেটে ২২৩।  হাতে আটটি উইকেট ও ১৬ ওভার থাকায় সাড়ে ৩০০ রান হবে-এমন সম্ভাবনাই ছিল। কিন্তু পাক বোলাররা তা হতে দেননি। ৪৯ ওভার শেষে বাকি আটটি উইকেট হারায় চ্যাম্পিয়নরা। ২২৩ থেকে ৩০৭ রানের মধ্যে স্মিথরা হারিয়ে ফেলেন সবকটি উইকেট।

দুই ওপেনার ছাড়া এই ম্যাচে অজিদের হয়ে কেউ সুবিধা করতে পারেনি। ওয়ার্নার সেঞ্চুরি করলেও মাত্র ১৮ রানের জন্য সেঞ্চুরি হাতছাড়া করেন অ্যারন ফিঞ্চ। তিনি ৮২ রান করে সাজঘরে ফেরেন। এই দুজন ছাড়া ব্যর্থ ছিলেন ম্যাক্সওয়েল-মার্শরা। তৃতীয় সর্বোচ্চ ২৩ রানে ম্যাক্সওয়েলের ব্যাট থেকে।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ পাঁচ উইকেট নেন মোহাম্মদ আমির। ১০ ওভারে মাত্র ৩৭ রান দিয়ে তিনি অজিদের গুঁড়িয়ে দেন। এছাড়া দুইটি উইকেট নেন শাহেন শাহ আফ্রিদী। একটি করে উইকেট নেন হাসান আলী, ওহাব রিয়াজ ও মোহাম্মদ হাফিজ।

advertisement