Paran Frooto
advertisement
advertisement

রিজার্ভ ডে না থাকায় হতাশ বাশার

মাইদুল আলম বাবু,লন্ডন থেকে
১৩ জুন ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৩ জুন ২০১৯ ০৩:০০

চার বছর পর আসে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। প্রতিটি দেশেরই আশা-আকাক্সক্ষা থাকে বিশ্বকাপ ঘিরে। ইংল্যান্ডে গ্রীষ্মের এই সময়ে বৃষ্টি হবে এটি সবার জানার কথা। বিশ্বকাপের আয়োজকরাও নিশ্চয়ই জানেন। বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন মনে করেন, রিজার্ভ ডে রাখা উচিত ছিল।

আইসিসিকে খুব একটা সমস্যায় পড়তে হতো না সে ক্ষেত্রে। বাংলাদেশ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জেতার পর হেরে যায় নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কাছে। ব্রিস্টলে শ্রীলংকার ম্যাচটি বৃষ্টির জন্য প- হয়ে যায়। ফলে বাংলাদেশ ও শ্রীলংকা ১ পয়েন্ট করে পেয়ে যায়। বাংলাদেশ চার ম্যাচ খেলে ফেলেছে বিশ্বকাপে। চার ম্যাচ থেকে বাংলাদেশের পয়েন্ট ৩।

আর পাঁচ ম্যাচ এখন বাকি রয়েছে। সেমিফাইনালের আশা অনেকটাই কমে যাচ্ছে। সামনে যে পাঁচটি প্রতিপক্ষ তার মধ্যে চারটিই সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। গতকাল বাংলাদেশ দল ব্রিস্টল থেকে টনটনে গিয়ে পৌঁছেছে। বাশার টিম হোটেলে টিভি সাংবাদিকদের সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় বলেছেন, ‘আসলেই আমি হতাশ। ইংল্যান্ডে এমন বৃষ্টি হবে সবার জানার কথা। চার বছর পর বিশ্বকাপ আসে।

আমরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলাম। রিজার্ভ ডে রাখা যেতেই পারত। আমরা এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত হলাম।’ আইসিসি এদিকে পরশু একটি বিশেষ ইমেইল করেছে। সেখানে তারা বলেছে- প্রতিম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখলে অনেক খরচ ও লোকবলের ব্যাপার আছে। ব্রডকাস্টিংয়ে যারা থাকবেন, তাদের সঙ্গে আগে চুক্তিবদ্ধ হতে হয়। আর যাতায়াতও একটি ব্যাপার।

তবে রিচার্ডসন জানিয়েছেন, এ ব্যাপারটি ভেবে দেখবেন। বাংলাদেশের সামনে কঠিন সমীকরণ। পাঁচটি ম্যাচ রয়েছে। সেমিফাইনালে যেতে হলে ১০ পয়েন্ট প্রয়োজন ন্যূনতম। বাশার মনে করেন, বাংলাদেশের আর উপায় নেই। এখনই জ্বলে উঠতে হবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের এখন প্রতিটি ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের পাঁচটি ম্যাচেই জিততে হবে, যদি কোয়ালিফাই করতে হয়। এ কাজটি সহজ হবে না। আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। যে ম্যাচগুলো আছে অনেক কঠিন হবে। তবে অসম্ভব নয়। আমরা আমাদের সেরাটা দিয়ে খেলতে পারলে অবশ্যই সম্ভব হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। বাংলাদেশ দল যথেষ্ট ভালো খেলবে, এটি আমার আশা ছিল শ্রীলংকার ম্যাচেই।

তবে বসে থাকার সময় নেই। যেটি চলে গেছে ভেবে লাভ নেই। আমাদের পরবর্তী পরিকল্পনা করতে হবে। পরের ম্যাচ ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে। ওরাও কঠিন প্রতিপক্ষ।’ ১৭ জুন টনটনে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচ। বাংলাদেশ দল গতকাল সেখানে গেছে। আজ বাংলাদেশ ক্রিকেট দল পুরো বিশ্রামে থাকবে। আগামীকাল আইসিসির বিশেষ প্রোগ্রাম রয়েছে। আর বিকালে রয়েছে অনুশীলন। তবে কোনো খেলোয়াড় যদি মনে করেন যে আলাদা অনুশীলন করা যেতে পারে, তা হলে তিনি যেতে পারেন। বাংলাদেশ দলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে পরিবর্তন আসতে পারে।

শ্রীলংকার ম্যাচটিতেই হতো সেটি। তবে এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচে সেই পরিবর্তন দেখা যেতে পারে। বাংলাদেশ এই বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে আফগানিস্তান, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলংকা, পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে লক্ষ্য করেছিল। তবে নিউজিল্যান্ডের ম্যাচটিতে টাইগাররা লড়াই করে হেরেছে। শ্রীলংকার ম্যাচ বাতিল হওয়ায় জটিল অঙ্কে পড়তে হয়েছে। সামনে অপেক্ষা করছে ক্রিস গেইল ও আন্দ্রে রাসেলের ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এ টুর্নামেন্টে ডার্ক হর্সেস তারা। যে কোনো কিছু হতে পারে! বাংলাদেশ আরও বেশি প্রেডিকটেবল। ফলে আশা হারানোর কিছু নেই। শুধু প্রার্থনা টনটনেও যেন বৃষ্টি না আসে!