advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ওসি মোয়াজ্জেম যেকোনো সময় গ্রেপ্তার

১৩ জুন ২০১৯ ০১:১৬
আপডেট: ১৩ জুন ২০১৯ ০৯:৩৪
advertisement

ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন যে কোনো সময় গ্রেপ্তার হতে পারেন। সূত্র জানিয়েছে, ইতোমধ্যেই ওসির অবস্থান শনাক্ত করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তার দেশত্যাগ ঠেকাতে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ইমিগ্রেশন চেক পয়েন্টে বিশেষ বার্তা পাঠানো হয়েছে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পরোয়ানা জারি হওয়ার পর থেকেই এই পুলিশ কর্মকর্তা পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে সরকারের ওপর চাপ বাড়ছে বিভিন্ন মহলের।

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল গতকাল বুধবার বলেছেন, ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে ধরা যাচ্ছে না বিষয়টা ঠিক নয়। তার বাইরে যাওয়ার সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সে দেশেই আছে। যে কোনো মুহূর্তে তাকে গ্রেপ্তার করা হবে। কারা অধিদপ্তরে উদ্ভাবনী মেলা ও শোকেসিং-২০১৯ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনাল ২৭ মে পরোয়ানা জারি করে। ৩১ মে পরোয়ানা ফেনীর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে পৌঁছায়। কিন্তু ফেনীর পুলিশ সুপার কাজী মনির-উজ-জামান বিষয়টি অস্বীকার করেন। একপর্যায়ে ৩ জুন রাতে পরোয়ানা হাতে পাওয়ার কথা স্বীকার করেন তিনি। এর দুদিন পর বিশেষ বার্তা বাহকের মাধ্যমে পরোয়ানাটি মোয়াজ্জেমের বর্তমান কর্মস্থল রংপুর রেঞ্জে পাঠানো হয়।

কিন্তু রংপুর রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি বলেন, কাজটি বিধি মোতাবেক হয়নি। ঈদের আগে মোয়াজ্জেম হোসেনের একটি আগাম জামিনের আবেদন হাইকোর্টে জমা পড়লেও এর শুনানি এখনো হয়নি। ফলে আদালতেও তাকে দেখা যায়নি। এ অবস্থায় সোমবার রাতে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে তাকে ধরতে অভিযান চালায় পুলিশ। মঙ্গলবারও অভিযান চালানো হয়।

ফেনীতে হত্যাকা-ের শিকার মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার অভিযোগের বক্তব্য ভিডিওতে ধারণ করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয় মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে। ওই মামলায় পরোয়ানা তামিল নিয়ে ফেনী ও রংপুর পুলিশের মধ্যে চলে ঠেলাঠেলি। মোয়াজ্জেমকে গ্রেপ্তারে পুলিশ আদৌ আন্তরিক কিনা, এ নিয়ে প্রশ্ন তোলে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ।

advertisement