advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নারী ও শিশুর জন্য বরাদ্দ ৮০ হাজার কোটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৩ জুন ২০১৯ ১৮:৪৮ | আপডেট: ১৩ জুন ২০১৯ ২০:২৩

শিশুদের প্রতি বিনিয়োগ বৃদ্ধি সরকারের একটি অগ্রাধিকার। গত অর্থবছরে শিশুদের জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৬৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। আগামী অর্থবছরে তা বাড়িয়ে ৮০ হাজার ২০০ কোটি প্রস্তাব করা হয়েছে; যা জাতীয় বাজেটের ১৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ। ৪৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অধীন দপ্তরগুলো নারীর ক্ষমতায়ন ও শিশুদের সুরক্ষায় এ টাকা ব্যয় করবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এই বাজেট উত্থাপন শুরু হয়। বাজেট উত্থাপন শেষ হয় পৌনে ৫টার দিকে। ‍

advertisement

প্রস্তাবিত বাজেটে বলা হয়, ২০৩০ সালের মধ্যে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা মুক্ত সমাজ গঠনে উদ্যোগ করা হয়েছে। ২০১৪ সালের ২২ জুলাই লন্ডন গার্লস সামিটে প্রদত্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার বাস্তবায়ন এবং বাল্যবিবাহ নিরোধকল্পে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা (২০১৮-২০৩০) অনুযায়ী বাংলাদেশে ২০২১ সালের মধ্যে ১৫ বছরের নিচে সব শিশুর বাল্যবিবাহ নির্মূল এবং ১৫ থেকে ১৮ বছর বয়সের মধ্যে বাল্যবিবাহরে হার এক-তৃতীয়াংশ হ্রাস এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাল্যবিবাহ সম্পূর্ণ নির্মূল করা হবে। দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সরকারি হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের মতো নির্যাতনে শিকার নারী ও শিশুদের জন্য সমন্বিত সেবা প্রদানের রেফারেল সিস্টেম তৈরি ও বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে ন্যাশনাল ডাটা বেইজ তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হবে আগামী বাজেটে।

অসুস্থতা নিয়েই আজ জাতীয় সংসদে প্রবেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বাজেট উত্থাপন শুরু করার কিছুক্ষণ পর অসুস্থতার কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বাজেট উত্থাপনের অনুরোধ জানান। পরে স্পিকারের অনুমতি নিয়ে বাজেট উত্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। 

‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে প্রস্তাবিত বাজেটের আকার পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। দেশের ৪৮ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট এটি। এবারের বাজেট দেশের ৪৮তম, আওয়ামী লীগ সরকারের ২০তম এবং অর্থমন্ত্রী হিসেবে আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রথম বাজেট।