advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ফিঞ্চের ব্যাটে দ্যুতি

সুসান্ত উৎসব
১৬ জুন ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ জুন ২০১৯ ০৮:৪৭
advertisement

অ্যারন ফিঞ্চ। তার হাতে নেতৃত্বের ঝাণ্ডা। তিনি বেশ উপভোগ করছেন। রেকর্ড পাঁচবার বিশ্বকাপ জিতেছে তার দেশ। অ্যালান বোর্ডার, ডেনিস লিলি, স্টিভ ওয়াহ, রিকি পন্টিংদের মতো বিশ্ব তারকারা খেলেছেন অস্ট্রেলিয়া দলে। সেই দলের অধিনায়ক হতে পারাটা ভাগ্যের ব্যাপার! অ্যারন ফিঞ্চ হয়তো তা মানছেন। দলনেতা তো সবাই হতে পারে না। তাই তো নিজেকে প্রতিনিয়ত প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন।

দক্ষ নাবিকের মতো দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। নিজের কাজটিও করে যাচ্ছেন ঠিকঠাক। অস্ট্রেলিয়া বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। তাদের লক্ষ্য শিরোপা ধরে রাখা। এখন পর্যন্ত সে পথে বেশ ভালোভাবেই টিকে আছেন অজিরা। তবে এখনো অনেক পথ। সেই পথটা সহজ নয়; কাঁটা বিছানো! ফিঞ্চ, স্মিথ, ওয়ার্নার, স্টার্করা তা জানেন। তাই তো ম্যাচ বাই ম্যাচ এগোচ্ছেন।

ক্রিকেটের মহাযজ্ঞে শিরোপা উঁচিয়ে ধরতে হলে দলগত পারফরম করার বিকল্প নেই। যার যে দায়িত্ব তা যদি সঠিকভাবে পালন করে তা হলেই স্বপ্নপূরণ! অ্যারন ফিঞ্চ অধিনায়ক। তার কাঁধে বাড়তি দায়িত্ব। মাঠে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। প্রতিপক্ষ-বধের রণকৌশল আঁটছেন। আবার ব্যাটিংয়েও অবদান রাখছেন। এটি তার দ্বিতীয় বিশ্বকাপ। ২০১৫ ছিল প্রথম। সেবার ক্লার্কের নেতৃত্বে খেলেন।

নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে পঞ্চম শিরোপা জয়ের স্বাদ পেয়েছিলেন অজিরা। গত বিশ্বকাপে ৮ ম্যাচে ৩৫ গড়ে ২৮০ রান করেছিলেন ফিঞ্চ। সেঞ্চুরি ছিল একটি (১৩৫)। ফিঞ্চ এখন আরও পরিণত। বয়স বেড়ে এখন ৩২। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) তার হাতে তুলে দিয়েছে নেতৃত্বের ঝাণ্ডা। নিজের দ্বিতীয় বিশ্বকাপকে স্মরণীয় করে রাখতে চান। এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া পাঁচ ম্যাচ খেলেছে। ফিঞ্চ ৬৮.৬০ গড়ে ৩৪৩ রান করেন, যা সর্বোচ্চ। সবচেয়ে বেশি রান করা অস্ট্রেলিয়া ব্যাটসম্যানদের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন ডেভিড ওয়ার্নার (২৮১)।

শুরুর ম্যাচেই ফিফটির স্বাদ পেয়েছেন ফিঞ্চ। সে ম্যাচে ৪৯ বলে ৬৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ (৬) ও ভারতের বিপক্ষ ম্যাচে (৩৬) নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। তবে টনটনে পাকিস্তান ম্যাচে আবার হাসে ফিঞ্চের ব্যাট। এবার ৮৪ বলে করেন ৮২ রান। গতকাল ওভালে শ্রীলংকার বিপক্ষে পেলেন সেঞ্চুরির স্বাদ।

১১৪ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে অজি ওপেনারের এটি ১৪তম সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপে দ্বিতীয়। এদিন ড্রেসিংরুমে ফেরার সময় তার নামের পাশে জ্বলজ্বল করেছে ১৫৩ রান। ফিঞ্চের ১৩২ বলের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৫টি চার ও ৫টি ছক্কায়। ফিঞ্চ বেশ ধারাবাহিক। বিশ্বকাপের আগে মার্চে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। ওই সিরিজে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি করেছিলেন। ৫ ম্যাচের সিরিজে তার ব্যাট থেকে আসে ১১৬, ১৫৩*, ৯০, ৩৯, ৫৩ রান।

ফিঞ্চের নেতৃত্বে ওই সিরিজ অজিরা জিতে নেন ৫-০ ব্যবধানে। পাকিস্তান সিরিজের ফরম বিশ্বকাপেও প্রবাহিত করছেন ফিঞ্চ। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের রেকর্ড গড়েন ফিঞ্চ। তার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়েই ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৩৪ রান তুলে অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপে এই স্কোর মানেই জয়ের হাতছানি। তবে ব্যাটিংয়ে নেমে দুর্দান্ত সূচনা করে শ্রীলংকা।

অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে ও কুশল পেরেরা ব্যাটিংয়ে রীতিমতো ঝড় তোলেন। ৪৩ বল খেলেই ফিফটিতে পৌঁছে যান করুনারতেœ। ৩৩ বলে ৫০ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন পেরেরা। এ দুজনের ব্যাটেই এগিয়ে যায় শ্রীলংকা।