advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাবাকে নিয়ে স্মৃতিকথা

১৬ জুন ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৯ ০৮:৫১
advertisement

জুন মাসের তৃতীয় রবিবার বিশ্ব বাবা দিবস। সে হিসেবে আজ পালিত হবে বিশেষ এ দিনটি। এই দিনে সন্তানের ভালোবাসায় সিক্ত হবেন প্রত্যেক বাবা। এ ভালোবাসা থেকে বাদ যাবেন না তারকাদের বাবারাও। শোবিজ অঙ্গনের তারকারা শুনিয়েছেন বাবাকে নিয়ে কিছু স্মৃতিকথা...

আমার চলার পথের শক্তি- তারিন: আমার বাবা পিডব্লিউডির ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন। তিনি এতটাই সৎ ছিলেন যে, ঢাকায় তার একটি বাড়ি নেই। বাবা সারা জীবন মানুষের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করে গেছেন। আমি তার সততাকেই আদর্শ হিসেবে মেনে পথ চলার চেষ্টা করি। বাবা আমার চলার পথের সবচেয়ে বড় শক্তি, অনুপ্রেরণা। এমন বাবার সন্তান হিসেবে আমি অবশ্যই গর্বিত।

বাবার আদর্শ নিজের মধ্যে লালন করি- অপূর্ব: আমার বাবা একজন পুলিশ অফিসার ছিলেন। তার আদর্শেই বেড়ে উঠেছি। বাবার আদর্শের যে বিষয়টি নিজের মধ্যে সবচেয়ে বেশি লালন করি, তা হলোÑ বাবা সবাইকে একসঙ্গে নিয়ে একই সুতোয় গেঁথে থাকতে ভালোবাসতেন। একসঙ্গে থাকাটাই তার মধ্যে ভীষণ ভালোলাগা কাজ করতো। আমিও ঠিক তাই পছন্দ করি।

আমার জীবনের সব কিছুই আব্বু জানেন- দিঠি: ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছি আব্বু দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য নিবেদিত একজন মানুষ। ওনার এ বিষয়টি আমাকে দারুণভাবে উৎসাহিত করে। যে কারণে আমারও মাঝে মাঝে মনে হয় দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কিছু করা উচিত। আমি জীবনে চলার পথে আব্বুর কর্মক্ষেত্রে সফলতার বিষয়টি বেশি ফলো করার চেষ্টা করি। তিনি তার বাবা-মাকে ভীষণ শ্রদ্ধা করতেন, সেবা করতেন। আমার জীবনের সব কিছুই আব্বু জানেন। ওনার সঙ্গেই শেয়ার করে শান্তি পাই।

আব্বুর সঙ্গে সম্পর্ক বন্ধুত্বের- কনা: আব্বুর সঙ্গে আমার সম্পর্ক দূরত্বের নয়, বন্ধুত্বের। ছোটবেলা থেকেই তার সঙ্গে সব কিছু শেয়ার করতাম। মগবাজার গার্লস স্কুলে পড়ার সময় আমি আর আমার বড় বোন একই রিকশায় আব্বুর সঙ্গে যেতাম। আমি আব্বুর কোলে বসতাম, আপু পাশে। আরেকটু বড় হওয়ার পর আমি ওপরে বসতাম। সেই দিনগুলো এখন অনেক মিস করি। আমি আমার বাবার সততা ও ক্ষমা করে দেওয়ার বিষয়টি বিশেষভাবে পেয়েছি। আমি আমার পেশায় যথেষ্ট সৎ থাকার চেষ্টা করি এবং বাবার মতোই ক্ষমাশীল হই। আম্মু আমার সঙ্গে দেশের বাইরে অনেকবার গিয়েছেন। কিন্তু আব্বু বিমানে উঠতে চান না বিধায় তাকে নিয়ে কোথাও যাওয়ার সুযোগ হয়নি। তাই আমার খুব ইচ্ছে, একদিন জোর করে হলেও আব্বুকে বিমানে উঠাব, দেশের বাইরে ঘুরতে নিয়ে যাব।

বাবা আমার সত্যিকারের হিরো- মিম: বাবা আমার জীবনের সাহস। তিনি সব সময় আমাকে অনুপ্রাণিত করেন। তিনিই আমার সেরা বন্ধু, আমার সত্যিকারের হিরো। বাবা আমাকে শিখিয়েছেন, কীভাবে সাহস ও বুদ্ধি খাটিয়ে জীবনে পথ চলতে হয়। ২০১৪ সালের একটা ঘটনা। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে মঞ্চের পেছনে দাঁড়িয়ে আমি। দুধসাদা রঙা গাউনে হাসিখুশি দেখে দু-একজন বলেও গেল, আমাকে দেখতে অনেক সুন্দর লাগছে! কিন্তু হঠাৎ করেই আমার মুখটা মলিন হয়ে যায়। কারণ মঞ্চে ওঠার কিছুক্ষণ আগে জানতে পারি, আমার বাবা অসুস্থ। খবরটা শুনে নড়ারও উপায় ছিল না আমার।

advertisement