advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিদেশি এজেন্টের কাছে বিমানের পাওনা বিশ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৮ জুন ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ জুন ২০১৯ ০০:১৯
advertisement

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেছেন, বিদেশে বাংলাদেশ বিমানের ২ হাজার ১৮৬টি ট্রাভেল এজেন্ট রয়েছে, তাদের মধ্যে ১৮টি এজেন্টের কাছে সংস্থাটির বকেয়া টাকার পরিমাণ বিশ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার ৫৫৯ টাকা।

এসব বকেয়া পাওনা টাকা আদায়ে মামলা করা হয়েছে, যা বর্তমানে চলমান রয়েছে। গতকাল জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী জানান, কলকাতার মেসার্স কুকা ট্রাভেলের কাছে ২১ লাখ ১০ হাজার ৬৬৯ টাকা, জেদ্দার আল হামরা ট্রাভেলের কাছে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৯০৮ টাকা, জেদ্দার আলোকলবি ট্রাভেলের কাছে ৩৮ হাজার ৫৯২ টাকা, রিয়াদের মেসার্স অসফার ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের কাছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৫২২ টাকা, লন্ডনের মেসার্স ইউনাইটেড ট্রাভেলের কাছে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮৭ টাকা, লন্ডনের মেসার্স বসুন্ধরার কাছে ১৮ লাখ ৪৪ হাজার ২৫৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স নীল আকাশের কাছে ৪৬ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৯ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কুশিয়ারার কাছে ৩ কোটি ৪২ লাখ ৯৮ হাজার ১৫ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কেএমসি ট্রাভেলস লিমিটেডের কাছে ৩৩ লাখ ৮০ হাজার ৭৩৫ টাকা, লন্ডনের এইচএসি ট্রাভেলের কাছে ১৮ লাখ ৬১ হাজার ৫০৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স এয়ার এক্সপ্রেস ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরস’র কাছে ৪১ লাখ ৪২ হাজার ১০৩ টাকা, কুয়েতের ইন্টারনিটি ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলের কাছে ৩০ লাখ ৬৩ হাজার ৬৫১ টাকা, কুয়েতের সালওয়া ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের কাছে ২ লাখ ৫৩ হাজার ৩৫ টাকা, কুয়েতের আল ফরওয়ানিয়া ট্রাভেলের কাছে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৩ টাকা, কুয়েতের রামসিস ট্রাভেলের কাছে ৫ লাখ ১২ হাজার ৭৫ টাকা, কুয়ালালামপুরের মেসার্স তারা ট্রাভেলের কাছে ১৭ লাখ ১১ হাজার ৫৪৯ টাকা ও দাম্মামের আল নাসের ট্রাভেলের কাছে ৫ কোটি ৪১ লাখ ৫৮৮ টাকা।

মন্ত্রী সংসদকে জানান, সংশ্লিষ্ট এজেন্সিগুলোর কাছে বকেয়া পাওনা টাকা আদায়ের জন্য স্থানীয়ভাবে মামলা দায়ের করা হয়েছে, যাহা চলমান আছে।

advertisement