advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যম

১৯ জুন ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ১৯ জুন ২০১৯ ১০:০২
advertisement

এক কথায় মাল্টিমিডিয়া মানে বহু মাধ্যম। মাল্টিমিডিয়া হলো মানুষের বিভিন্ন প্রকাশ মাধ্যমের সমন্বয়। আমরা অন্তত তিনটি মাধ্যম বা মিডিয়া ব্যবহার করে নিজেদের প্রকাশ করি সেগুলো হলো-বর্ণ, চিত্র ও শব্দ (সাউন্ড)। এ মাধ্যমগুলোর বিভিন্ন রূপও রয়েছে।

মাল্টিমিডিয়ার প্রধান মাধ্যমগুলো :

বর্ণ বা টেক্সট : টেক্সটের যাবতীয় কাজ এখন কম্পিউটারে হয়ে থাকে। একসময় টাইপরাইটার দিয়ে এসব কাজ করা হতো, এখন অফিস-আদালত থেকে পেশাদারি মুদ্রণ পর্যন্ত সর্বত্রই কম্পিউটার ব্যবহার হচ্ছে।

চিত্র বা গ্রাফিক্স : সর্বত্রই গ্রাফিক্স তৈরি, সম্পাদনা ইত্যাদি যাবতীয় কাজ কম্পিউটার ব্যবহার করেই করা হয়।

দেশে গ্রাফিক্স ডিজাইন, পেইন্টিং, ড্রইং বা কমার্শিয়াল গ্রাফিক্স নামক চারুকলার যে অংশটি রয়েছে তাতে কম্পিউটারের ব্যবহার অত্যন্ত সীমিত। তবে একটি ব্যতিক্রমী এলাকা হচ্ছে মুদ্রণ ও প্রকাশনা। মুদ্রণ প্রকাশনায় গ্রাফিক্স ডিজাইনের ক্ষেত্রে কম্পিউটারের ব্যবহার শুরু হয় নব্বইয়ের দশকে।

ভিডিও : ভিডিও কার্যত এক ধরনের গ্রাফিক্স, চলমান গ্রাফিক্স বললে ভালো হয়। বিশ্বজুড়ে ভিডিও একটি সুপ্রতিষ্ঠিত মিডিয়া। টিভি, হোম ভিডিও, মাল্টিমিডিয়া সফটওয়্যার, ওয়েব ইত্যাদি সব ক্ষেত্রেই ভিডিওর ব্যবহার ব্যাপক।

অ্যানিমেশন : অ্যানিমেশনও এক ধরনের গ্রাফিক্স বা চিত্র, তবে সেটি চলমান বা স্থির হতে পারে, এটি দ্বিমাত্রিক বা ত্রিমাত্রিক হতে পারে। দেশে অ্যানিমেশনের ব্যবহারও ক্রমেই ব্যাপক হচ্ছে। বিশেষত বিজ্ঞাপনচিত্রে অ্যানিমেশন একটি প্রিয় বিষয়, তবে অ্যানিমেশনে কাজ করার লোকের অভাব রয়েছে।

শব্দ বা অডিও : শব্দ বা অডিও রেকর্ড, সম্পাদনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে সারা দুনিয়া এখন কম্পিউটারের ওপর নির্ভর করে। সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অ্যানালগ পদ্ধতি এখন কার্যত সম্পূর্ণ অচল হয়ে পড়েছে। কম্পিউটার দিয়ে উন্নত মানের সাউন্ড রেকর্ডিং করতে পারেন।

(পঞ্চম অধ্যায় : মাল্টিমিডিয়া ও গ্রাফিক্স, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, নবম-দশম শ্রেণি)