advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফেরত না পাঠালে নিরাপত্তা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ জুন ২০১৯ ১৮:২৪ | আপডেট: ২৭ জুন ২০১৯ ০০:৫১
পুরোনো ছবি
advertisement

সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের সঙ্গে তিনটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সম্পাদন হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘চুক্তির একটিতে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে যে, দুই বছরে মধ্যে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে তথাপিও মিয়ানমার সরকার নানা তালবাহানা সৃষ্টি করে এই প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করছে। রোহিঙ্গাদের অতিদ্রুত ফেরত না পাঠাতে পারলে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্ক্ষা রয়েছে।’

আজ বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ সদস্য নুর মোহাম্মদের প্রশ্নের লিখিত উত্তরে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনের শুরতে প্রশ্ন-উত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়।

সংসদনেতা বলেন, ‘মিয়ানমারের ১১ লক্ষাধিক নাগরিক অনিদৃষ্টকালের জন্য অন্ন, বস্ত্র ও বাসস্থানের সংস্থান করা আমাদের জন্য দুরূহ ব্যাপার। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক মৌলিক অধিকারবঞ্চিত এই সকল বাস্তুচ্যুত অধিবাসীরা স্বাভাবিকভাবেই অসন্তুষ্টিতে ভুগছে। তাদের রয়েছে অনেক অভাব-অভিযোগ। এদেরকে অতিদ্রুত ফেরত না পাঠাতে পারলে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্ক্ষা রয়েছে। তাই জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবাসনের লক্ষ্যে প্রথম থেকেই একটি স্থায়ী সমাধানের জন্য কূটনৈতিক প্রচেস্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগিরকদের ফিরিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমারে তৈরি ঘরবাড়ি ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত বছর আগস্টে মিয়ানমার সফর করেন। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক করার জন্য ইতিমধ্যে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের চতুর্থ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বৈটকে দু’দেশের সন্মতিক্রমে দ্রুত প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরুর সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে গত বছর ২৫ নভেম্বর নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ায় জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকরা স্বেচ্ছায় ফেরত যেতে রাজি হয়নি। ফলে ২৫ নভেম্বর প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করা সম্ভব হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের সাথে আমরা তিনটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সম্পাদক করেছি। চুক্তির একটিতে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে যে, দুই বছরে মধ্যে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে তথাপিও মিয়ানমার সরকার নানা তালবাহানা সৃষ্টি করে এই প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করছে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘চুক্তিতে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে যে এ সকল বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার অধিবাসীদের নিরাপত্তা, সম্মান এবং স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। চুক্তির এ আদর্শ ও মূল বাণী বাস্তবায়নের জন্য মিয়ানমার সরকারকেই উদ্যোগী ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে এবং আশ্বাস প্রদান করতে হবে। কেননা মিয়ানমার সরকার নিজেরাই এ সমস্যা তৈরি করেছে। বিশ্ব জনমত ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় অব্যাহতভাবে আমাদের সমর্থন দিয়ে যচ্ছে। জাতিসংঘ এ বিষয়ে মানবাধিকার কমিশনে একটি রিপোর্ট প্রেরণ করেছে। কিন্তু মিয়ানমার সরকার তাদেরকে এ বিষয়ে কাজ করতে দিচ্ছে না। মিয়ানমারের অসহযোগিতা সত্ত্বেও আমরা দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক দুইটি পথই খোলা রেখেছি। বঙ্গবন্ধুর অনুসৃত পররাষ্ট্রনীতি অনুযায়ী সকল বিরোধের শান্তিপূর্ণ নিস্পত্তির বিষয়ে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

বিএনপি-জামায়াতের সময় দেশ দুর্নীতির চক্রে নিপাতিত

সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যখন বিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্বাসন এবং পুনর্গঠনের কাজ করছিলেন ঠিক সে সময়েই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে আমাদের অগ্রগতি রুদ্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর ২১ বছর ধরে চলে সামরিক ও স্বৈরাশাসকের লুটপাট তন্ত্র। আওয়ামী লীগ ১৯৯৬ সালে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করে। এরপর দেশের অগ্রযাত্রা শুরু হয়। ক্ষমতায় এসে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অনেক ইস্যু দ্রুততার সঙ্গে সমাধান করে দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাই। একবিংশ শতাব্দীর শুরুতে এই অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়। ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায় আসে। আবার দুর্নীতির চক্রে নিপাতিত হয় দেশ। হাওয়া ভবনের নামে তারেক জিয়া চালাতে থাকে লুটপাট। অর্থনৈতিক উন্নয়ন সূচকের প্রায় সবগুলোতেই বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়তে থাকে। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদে দুই তৃতীয়াংশের অধিক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করে। আমরা আবার দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করার জন্য মনোনিবেশ করি। ২০০৯ সাল থেকে আমাদের অগ্রযাত্রা শুরু হয়। বিগত ১০ বছর ধরে এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ফলে জনগণের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের মানুষের বর্তমান মাথাপিছু আয় বেড়ে এক হাজার ৯০৯ মার্কিন ডলারে উন্নিত হয়েছে যা গত বছর ছিল এক হাজার ৭৫১ ডলার। গত এক বছরে মাথাপিছু আয় বেড়েছে ১৫৮ মার্কিন ডলার। ২০০৬ সালে মাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ৫৪৩ ডলার অর্থাৎ এ সময়ে মাথাপিছু আয় বেড়েছে সাড়ে তিন গুণ।’