advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হলি আর্টিজানে নিহতদের শ্রদ্ধা জানালেন ইতালিয়ানরা

ইসমাইল হোসেন স্বপন ইতালি
৩ জুলাই ২০১৯ ১৮:৩৩ | আপডেট: ৩ জুলাই ২০১৯ ১৮:৩৩
advertisement

গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার তিন বছর পূর্তি। ভয়াবহ ওই জঙ্গি হামলার তিন বছর উপলক্ষে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানালেন ইতালির নাগরিকরা।

গত সোমবার মিলান কমুনের একটি হল রুমে বিকেল সাড়ে চারটায় অনুষ্ঠিত হলো ঢাকার গুলশানে হলিআর্টিজেন রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত নয়জন ইতালিয়ান নাগরিকের স্মরণে আলোচনা সভা।

আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করেন মিলান প্রশাসনিক উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। হলিআর্টিজেন সন্ত্রাসী হামলায় নিহত পরিবারের সদস্যরা এবং বাংলাদেশ কন্স্যুলেট জেনারেল মিলান কনসাল জেনারেল জনাব ইকবাল আহমেদ, কন্স্যুলেট কর্মকর্তা, ইতালিয়ান বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র সাংবাদিকবৃন্দ সহ মিলান বাঙলা প্রেস ক্লাব ইতালির উপদেষ্টা তুহিন মাহামুদ এবং সম্মানিত সদস্য জালাল হাওলাদার।

স্মরণ সভা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সমবেদনা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কন্স্যুলেট জেনারেল মিলান এর কনসাল জেনারেল ইকবাল আহমেদ।
তিনি বলেন, ‘২০১৬ সালের ১লা জুলাই ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলায় ২০ জন নিহত হন এর পেছনে ২১ জন জড়িত। এর মধ্যে ১৩ জন বিভিন্ন অপারেশনে নিহত হয়েছে বাকী ৮ জন পুলিশ কাষ্টরিতে আছে। এদের বিচারকার্য দ্রুত সম্পন্ন হবে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকার অত্যন্ত সচেষ্ট।’

উল্লেখ্য যে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে রাজধানীর কূটনৈতিকপাড়া গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করে জঙ্গিরা। নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তাও। দীর্ঘ তদন্ত শেষে গত বছরের ২৩ জুলাই আটজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। পরে আটজনের মধ্যে দুই পলাতক আসামি শহিদুল ইসলাম ও মামুনুর রশিদকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। বতর্মানে আটজনই কারাগারে রয়েছেন। আদালত ওই মামলার চার্জশিট আমলে নেওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ৬০ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীকে দ্রুত সময়ের মধ্যে আদালতে হাজির করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবী।