advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কোপা আমেরিকায় ব্রাজিলের ‘দুর্নীতি’, বোমা ফাটালেন মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক
৭ জুলাই ২০১৯ ১৪:৪৭ | আপডেট: ৭ জুলাই ২০১৯ ১৭:৩৫
advertisement

ব্রাজিলের কাছে সেমিফাইনালে হেরে আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা শেষ হয়ে গেছে আগেই। রাতে কারেন্থিয়াস অ্যারেনায় চিলির বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে খেলতে নামে আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচের ৩৬ মিনিটের সময় মারামারি করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন আর্জেন্টিনার মেসি ও চিলির মেডেল। শেষ পর্যন্ত জয় পেলেও দুর্নীতির অভিযোগ করে তৃতীয় স্থান অর্জন করার পুরষ্কার ব্রোঞ্জ পদক নিতে যাননি লিওনেল মেসি।

ম্যাচ শেষে ক্ষিপ্ত মেসি বলেন, ‘আমি মনে করি লাল কার্ড আমি ডিজার্ভ করি না, আমরা অনেক ভালো খেলাই খেলেছি। আমরা এগিয়েও ছিলাম। কিন্তু কিছুদিন আগেই (ব্রাজিলের ম্যাচের পর) বলেছিলাম এখানে ব্যাপক দুর্নীতি হচ্ছে। তারা (ব্রাজিল) চায়নি আমরা ফাইনালে খেলি, যেখানে আমরা আরও ভালো কিছুর জন্য প্রস্তুত ছিলাম।’

সবকিছু ব্রাজিলের জন্য প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে-এমন অভিযোগ করে মেসি বলেন, ‘এতে কোনো সন্দেহ নেই, সবকিছুই ব্রাজিলের জন্য নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে।’

‘আমি এই দুর্নীতির অংশ হতে চাই না এবং আমাদের হওয়া উচিতও না। আমি সবসময় সত্য কথা বলি এবং আমি সৎ। আমি মনে করি, রেফারি অতিরিক্তই করেছে।  আমাদের জন্য হলুদ কার্ডই যথেষ্ট ছিল। সবকিছুতেই বাড়াবাড়ি ছিল।’ মেডেল না নেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে মেসি এই মন্তব্য করেন।

‘দুর্নীতির কথা বলার জন্যই কী লাল কার্ড?’ এমন প্রশ্নে মেসি বলেন, ‘হ্যাঁ, অপ্রত্যাশিত হলেও এটার জন্যই হয়েছে। তুমি কখনো সৎ হতে পারবা না।’

চিলির বিপক্ষে নিজের ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় লাল কার্ডটি দেখেন মেসি। এর আগে ২০০৫ সালে নিজের অভিষেক ম্যাচেই প্রথম লাল কার্ড দেখেছিলেন মেসি।

ম্যাচ শুরুর ১২ মিনিটেই সার্জিও আগুয়েরোর গোলে এগিয়ে যায় আলবিসেলেস্তারা। ২২ মিনিটের সময় ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পাউলো দিবালা। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই ঘটে যায় অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। বিরতিতে যাওয়ার আগে ২-০ গোলে এগিয়ে ছিল আর্জেন্টিনা।

বিরতি থেকে আসার ১৫ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল দিয়ে ব্যবধান কমান চিলির ভিদাল। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলে জিতে কোপা আমেরিকায় তৃতীয় হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় মেসিদের।