advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ব্রিটিশ ট্যাঙ্কারকে ‘হয়রানি’, ধমক খেয়ে পিছু হটে ইরানি বোট

১১ জুলাই ২০১৯ ১২:৫৩
আপডেট: ১১ জুলাই ২০১৯ ১৫:০০
advertisement

পারস্য উপসাগরে ইরানের রেভ্যুলুশনারি গার্ডের পাঁচটি নৌকা একটি ব্রিটিশ তেলবাহী ট্যাঙ্কারকে হয়রানির চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। এসময় তারা ট্যাঙ্কারটিকে থামার নির্দেশ দেয়। কিন্তু একটি ব্রিটিশ যুদ্ধ জাহাজ সতর্ক করার পর তারা পিছু হটে।

গতকাল বুধবার পারস্য উপসাগরে ইরানি জলসীমার কাছে এ ঘটনা ঘটেছে বলে ওই কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সিরিয়ায় তেল নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে যুক্তরাজ্যের রাজকীয় মেরিন জিব্রাল্টার উপকূলে ইরানের একটি ট্যাঙ্কার আটক করার এক সপ্তাহ পর এই ঘটনা ঘটলো। ইরানের প্রেসিডেন্ট ওই ট্যাঙ্কার আটকের ঘটনায় যুক্তরাজ্যকে ‘ফল’ ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন।

পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে এক মার্কিন কর্মকর্তা জানান, বুধবার ব্রিটিশ হেরিটেজ নামে ওই তেলবাহী ট্যাংকারটি হরমুজ প্রণালীর উত্তর প্রবেশদ্বারে পৌঁছালে সন্দেহভাজন রেভ্যুলুশনারি গার্ডের নৌকাগুলো এটিকে থামার নির্দেশ দেয়।

আরেক কর্মকর্তা জানান, রাজকীয় নৌবাহিনীর এইচএমএস মন্ট্রোজও তখন সেখানে উপস্থিত ছিল। তারা নৌকাগুলোর দিকে বন্দুক তাক করে রেডিওতে সতর্কবার্তা পাঠালে সেগুলো সেখান থেকে সরে পড়ে। 

এটিকে হয়রানি এবং হরমুজ প্রণালীতে হস্তক্ষেপের চেষ্টা বলে মন্তব্য করেছেন আরেক কর্মকর্তা। তবে এ বিষয়ে ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি।

ইরানের ওপর নতুন করে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের পর থেকেই ইরান ও যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের মিত্রদের মাঝে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। ইরানের কার্যক্রমকে আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ দাবি করে দেশটির তেল রপ্তানি শূন্যতে নামিয়ে ‘সর্বোচ চাপ’ প্রয়োগের উদ্দেশ্যে এই অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করা হয়।

তবে ইরানও এই অবরোধের পাল্টা জবাব দিতে থাকে। তারা ২০১৫ সালে করা পারমাণবিক চুক্তির সীমা লঙ্ঘন করতে শুরু করে। মে এবং জুন মাসে ইরানের দক্ষিণ জলসীমার কাছে বেশ কয়েকটি ট্যাঙ্কার আক্রমণের শিকার হয়। এগুলোর জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইরানকে দায়ী করলেও তারা এ অভিযোগগুলো অস্বীকার করে আসছে। 

advertisement