advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সর্বনিম্ন শাস্তিরও কম দেওয়ায় বিচারকের কাছে ব্যাখ্যা তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক
১১ জুলাই ২০১৯ ২১:২৬ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০২:১৭
advertisement

অস্ত্র আইনে করা এক মামলার আসামিকে আইনের নির্ধারিত সর্বনিম্ন শাস্তির চেয়ে কম শাস্তি দেওয়ায় নাটোরের তিন নম্বর বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারকের কাছে ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আসামির করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে বৃহস্পতিবার বিচারপতি এএনএম বশির উল্লাহ ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আসামির পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. তাহেরুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আমিনুল ইসলাম ও আনোয়ারা শাহজাহান এবং সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ফাতেমা রশিদ।

পরে আমিনুল ইসলাম জানান, ২০১৭ সালের ২৭ জুলাই পিস্তলসহ মো. রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। একইদিন তার বিরুদ্ধে নাটোর সদর থানায় মামলা হয়। এই মামলায় বিচার শেষে গত ২৮ মার্চ রাজ্জাককে সাত বছরের কারাদণ্ড দেন নাটোরের তিন নম্বর বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক বেগম রুবাইয়া ইয়াসমিন। ১৮৭৮ সালের অস্ত্র আইনের ১৯ক ধারায় এই সাজা দেওয়া হয়। অথচ আইনের এই ধারায় সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং সর্বনিম্ন সাজা ১০ বছর কারাদণ্ড। পরে আসামি হাইকোর্টে আপিল করেন।

তিনি আরও জানান, বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট তার আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে নথি তলব করেছেন। একইঙ্গে দণ্ডের বিষয়টি নজরে আসায় ওই বিচারকের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছেন হাইকোর্ট। আইনের কোন কর্তৃত্ববলে এ আদেশ দিয়েছেন তা আগামী ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে বিচারক বেগম রুবাইয়া ইয়াসমিনকে ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আদালত আগামী ২৫ জুলাই পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন।

advertisement