advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

৩৩৩ প্রস্তাব নিয়ে রবিবার শুরু হচ্ছে ডিসি সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:১১
advertisement

বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের ৩৩৩ প্রস্তাব নিয়ে আগামী রবিবার শুরু হচ্ছে জেলা প্রশাসক সম্মেলন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে সকাল ৯টায় সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

শফিউল আলম জানান, এবারের ডিসি সম্মেলন হবে পাঁচ দিনব্যাপী। গতবার সম্মেলন হয়েছিল তিন দিনের। এবার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি স্পিকার, প্রধান বিচারপতি ও তিনি বাহিনীপ্রধানের সঙ্গে বসবেন ডিসিরা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এ সম্মেলনে সর্বমোট ২৯টি অধিবেশন, ২৪টি কার্য-অধিবেশন হবে। এসব অধিবেশনে ১টি কার্যালয় ও ৫৪টি বিভাগ/মন্ত্রণালয় অংশ নেবে। অধিবেশনগুলোয় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে বা বিভাগের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপদেষ্টা বা

উপমন্ত্রী যোগ দেবেন। এ ছাড়া থাকবেন সিনিয়র সচিব ও সচিবরা। তিনি আরও জানান, ৩৩৩টি প্রস্তাবের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ২৯টি স্থানীয় সরকার বিভাগ, ২৬টি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং ২০টি ভূমি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত প্রস্তাব।

ভূমি ব্যবস্থাপনা, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম জোরদার করা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, ত্রাণ পুনর্বাসন কার্যক্রম, স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসৃজন ও দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি বাস্তবায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচি বাস্তবায়ন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার এবং ই-গভর্নেন্স, শিক্ষার মান উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ, স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবার কল্যাণ, পরিবেশ সংরক্ষণ ও দূষণরোধ, ভৌত অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং উন্নয়ন কার্যক্রমের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও সমন্বয় নিয়ে ডিসি সম্মেলনে আলোচনা হবে।

১৫ জুলাই সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে ডিসিদের দিকনির্দেশনা দেবেন রাষ্ট্রপতি। ১৬ জুলাই বিকালে সুপ্রিমকোর্ট জাজেস লাউঞ্জে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ডিসিরা।

এ ছাড়া ১৮ জুলাই বিকালে জাতীয় সংসদ ভবনের কেবিনেট কক্ষে স্পিকারের অনুপস্থিতিতে ডেপুটি স্পিকারের সঙ্গে তারা সাক্ষাৎ করবেন। ১৮ জুলাই বুধবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে হবে ডিসি সম্মেলনের সমাপনী অধিবেশন।

গত বছরের ডিসি সম্মেলনে গৃহীত সিদ্ধান্তের ৯২ দশমিক ৯০ শতাংশ বাস্তবায়ন হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

advertisement