advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পূর্ণ মন্ত্রী হচ্ছেন ইমরান

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:১১
advertisement

সরকার গঠনের সাত মাসের মাথায় মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণ করতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবার মন্ত্রিসভায় যুক্ত হচ্ছেন নতুন একজন প্রতিমন্ত্রী। এ ছাড়া, একজন প্রতিমন্ত্রী পদোন্নতি পেয়ে হচ্ছেন পূর্ণ মন্ত্রী। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসক সম্মেলন বিষয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, আগামীকাল শনিবার সন্ধ্যায় গণভবনে নতুন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী শপথ নেবেন। আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা এমপি। তাকে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হতে পারে। মন্ত্রণালয়টি প্রধানমন্ত্রীর অধীনে রয়েছে। আর প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমেদ চৌধুরীকে পদোন্নতি দিয়ে মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করা হচ্ছে। সূত্র জানিয়েছে, মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভূক্তির জন্য আরও অনেকেই চেষ্টা চালাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে ইমরান ও ইন্দিরার সঙ্গে আরও কেউ শপথ নিলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

সিলেট-৪ আসনের এমপি ইমরান আহমেদ চৌধুরী এতদিন প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দেখভাল করে আসছিলেন। এই মন্ত্রণালয়ে

কোনো পূর্ণ মন্ত্রী ছিল না। অন্যদিকে, ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা টানা তিন মেয়াদে সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি এবার মন্ত্রিসভায় যুক্ত হবেন এমন গুঞ্জন অনেকদিন থেকেই চলছিল।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ৭ জানুয়ারি টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। ৪৬ সদস্যের ওই মন্ত্রিসভায় ২৪ মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার হাতে রেখেছেন ছয়টি মন্ত্রণালয়।

গত ১৯ মে প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভা পুনর্বিন্যাস করা হয়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়। এ ছাড়া ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারকে একই মন্ত্রণালয়ের ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী করা হয়। আর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের একক দায়িত্ব দেওয়া হয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলককে।

একই সঙ্গে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী তাজুল ইসলামের অধীনে রাখা হয় শুধু স্থানীয় সরকার বিভাগ। এ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের অধীনে রাখা হয় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগ।