advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ট্রেনে ধর্ষণের শিকার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:১১
advertisement

যমুনা এক্সপ্রেস ট্রেনে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সম্রাট নামে কমলাপুর রেলস্টেশনের এক ঝাড়–দারের বিরুদ্ধে। গত বুধবার সন্ধ্যায় কমলাপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া যমুনা এক্সপ্রেস ট্রেনে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল বৃহস্পতিবার পাশবিক নির্যাতনের শিকার শিশুটিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত সম্রাটকে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন যাত্রীরা।

শিশুটির বরাত দিয়ে ট্রেনের যাত্রীরা জানান, ভুক্তভোগী মেয়েটির নানি মুগদা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বুধবার বিকালে হাসপাতালের নিচে নামলে সেখান থেকে ভুল বুঝিয়ে সম্রাট তাকে রিকশাযোগে কমলাপুর নিয়ে যায়। কমলাপুরে ট্রেনের মধ্যে ভয় দেখিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে ট্রেনের যাত্রীরা তার সঙ্গে কেউ আছে কিনা জিজ্ঞেস করলে সঙ্গের যুবকটি অসংলগ্ন কথা বলে। শিশুটি অসুস্থবোধ করায় এবং ওই যুবকের পরিচয় নিয়ে সন্দেহ হওয়ায় তাকে আটকে রাখেন ট্রেনযাত্রীরা। এরপর বিমানবন্দর স্টেশনে নেমে শিশুটিকে তারা নিয়ে যান কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে। সেখানে রেপ ভিকটিমদের চিকিৎসা করা হয় না বলে ফিরিয়ে দিলে মধ্যরাতে মেয়েটি ও অভিযুক্তকে ঢাকা রেলওয়ে থানায় আনা হয়।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর সঙ্গে জিআরপি থানায় অবস্থান করা সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাতুল শিকদার জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ধর্ষণের শিকার ওই শিশুকে ট্রেন থেকে উদ্ধার এবং সম্রাট নামে ওই যুবককে আটক করেন যাত্রীরা। রাত দেড়টার দিকে মানিকনগর থেকে শিশুটির মাকে আনা হয় থানায়।

কমলাপুর রেলওয়ে পুলিশের ইনচার্জ সাব-ইন্সপেক্টর রুশো বণিক জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত সম্রাটকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই স্কুলছাত্রী পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ওসিসি রিপোর্ট পেলে এই বিষয়ে নিশ্চিত করে বলা যাবে।