advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যাবজ্জীবন সাজার মেয়াদ নিয়ে রায় যে কোনো দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:১১
advertisement

‘যাবজ্জীবন’ সাজার মেয়াদ আমৃত্যু কারাভোগ হবে না কত বছর কারাভোগ করতে হবে সে ব্যাপারে আপিল যে কোনো দিন রায় দেবেন। ‘যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস’-এমন অভিমত দিয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার আমলে আপিল বিভাগ এক রায় দেন। এর আগে আপিল বিভাগের আরেকটি রায়ে যাবজ্জীবন সাজা হলে সাড়ে ২২ বছর ভোগ করতে হবে বলে উল্লেখ রয়েছে। এ অবস্থায় আমৃত্যু সাজা ভোগের রায়টি পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে এক আসামি আবেদন করেন। ওই আবেদনের ওপর শুনানি গ্রহণ শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতি বেঞ্চ যে কোনো দিন রায় ঘোষণা করবেন বলে জানান।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। অন্যদিকে আসামির রিভিউ আবেদেনর পক্ষে শুনানিতে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও অ্যাডভোকেট শিশির মনির। এ ছাড়া এ বিষয়ে আইনি মতামত তুলে ধরেন সুপ্রিমকোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রোকন উদ্দিন মাহমুদ, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এএফ হাসান আরিফ, আবদুর রেজাক খান ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এএম আমিন উদ্দিন। এর আগে গত ১১ এপ্রিল আপিল বিভাগ তাদের অ্যামিকাস কিউরি (আদালতকে আইনগত

মতামতদানকারী) হিসেবে নিয়োগ করেন।

জানা যায়, সাভারের একটি হত্যা মামলায় দুই আসামিকে মৃত্যুদ- দিয়ে ২০০৩ সালের ১৫ অক্টোবর রায় দেন বিচারিক আদালত। এ রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের করা আপিল শুনানি করে হাইকোর্ট ২০০৭ সালের ৩০ অক্টোবর দুজনেরই মৃত্যুদ- বহাল রাখেন। তারা হলেন আতাউর মৃধা ওরফে আতাউর ও আনোয়ার হোসেন। এ রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা আপিল বিভাগে আপিল করেন। ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগের দেওয়া রায়ে দুই আসামির মৃত্যুদ-ের শাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদ- দেওয়া হয়। একই সঙ্গে আদালত যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাসসহ সাত দফা অভিমত দেন।

আপিল বিভাগের দেওয়া এ রায়ের বিরুদ্ধে আসামি আতাউর মৃধা ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর পুনর্বিবেচনার আবেদন করেন। আসামি পক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন জানান, দ-বিধিতে আমৃত্যু কারাদ- নামে কোনো দ- নেই। যাবজ্জীবন কারাদ- অর্থ আমৃত্যু কারাদ- হলে ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৫ এ এবং জেল কোডের সংশ্লিষ্ট বিধান অকার্যকর হয়ে যায়। এ ছাড়া ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১, ৪০২ এবং দ-বিধির ৫৫ ধারায় প্রদত্ত সরকারের ক্ষমতা খর্ব করা হয়। তা ছাড়া যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাভোগ হলে কারাগারগুলো বৃদ্ধাশ্রমে পরিণত হয়ে যাবে।

এর আগে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছিলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস উল্লেখ করে রায় দেন। কিন্তু এর আগেই বিচারপতি মো. ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ থেকে যাবজ্জীবন মানে সাড়ে ২২ বছর কারাদ- উল্লেখ করে রায় দেন। দুটি রায়ই আপিল বিভাগের। আবার দুটি রায়ই এসেছে চারজন বিচারপতির বেঞ্চ থেকে। সে কারণে বর্তমানে দুটি রায়ই বিদ্যমান। তাই যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু না সাড়ে ২২ বছর সেটা স্পষ্ট হওয়া দরকার।

advertisement