Paran Frooto
advertisement
Paran Frooto
advertisement
advertisement

সাঙ্গার সঙ্গে কিছুক্ষণ

মাইদুল আলম বাবু,লন্ডন থেকে
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:৪৬
advertisement

বার্মিংহামে আসলে আমার পেটের ক্ষুধা বেড়ে যায়। কী জানি! আবহাওয়াটাই বুঝি এমন! সকালে উঠেই স্টেডিয়ামে চলে আসি। বার্মিংহামের এজবাস্টন স্টেডিয়াম। বেশ নাম-করা ও ঐতিহ্য রয়েছে এ ভেন্যুর। এ মৌসুমে অ্যাশেজের প্রথম টেস্টটি এখানেই রয়েছে। সকালের নাশতা করতে গিয়ে ক্রিকেটের অন্যতম ভদ্রলোক কিংবদন্তি কুমার সাঙ্গাকারার সঙ্গে দেখা। চা-পানে ব্যস্ত ছিলেন। মিডিয়াকর্মী ও ধারাভাষ্যকাররা এক ডাইনিংয়েই খাবারদাবারের কাজ সারেন। আমিও গিয়ে বসলাম।

প্রথমেই বললাম, ‘স্যার আমি আপনার কাভার ড্রাইভের ভক্ত!’ মুচকি হাসলেন। এ কথাটি জীবনে অনেক বার শুনেছেন। সম্প্রতি এমসিসির প্রেসিডেন্ট হয়েছেন। নীল রঙের ব্লেজারে অন্য রকম ভালো লাগছিল তাকে। আমি খাবার শেষ হওয়ার অপেক্ষা করছিলাম। সাঙ্গাকারা বুঝতে পারছিলেন পিছু ছাড়ব না। দু-একটি কথা তো বলবই। কাছে আসতেই আমার যা কাজ, আগে সেলফি তুলে ফেলি। শ্রীলংকা ক্রিকেট নিয়ে জিজ্ঞেস করি।

জবাবে বলেন, ‘একটু সময় লাগবে। এ তরুণ দলটিকে সময় দিতে হবে।’ কোচ হাথুরুসিংহে শ্রীলংকার জন্য সঠিক কিনা জানতে চাইলে বলেন, ‘তিনি খেলাটি ভালো বোঝেন। আমার মনে হয় একটু সময় দিলে সব ঠিক হয়ে যাবে।’ বাংলাদেশের খেলা দেখেছেন সাঙ্গাকারা। আশা করছেন, আগামী বিশ্বকাপে আরও সুসংগঠিত হয়ে ফিরে আসবে তারা। একটি সঠিক কম্বিনেশন পেতে অনেক অপেক্ষা করতে হয় বলে মনে করেন তিনি।

সাঙ্গাকারা সাবেক অধিনায়ক শ্রীলংকার। সর্বকালের সেরাদের একজন তিনি। টেস্ট ওয়ানডেতে ১০ হাজারের ওপরে রান তার। সাঙ্গাকারার বাবা ও মা আইনজীবী। মজার ব্যাপার হচ্ছে, সাঙ্গাকারা নিজেও আইনের ছাত্র। এখন পুরো মাত্রায় ধারাভাষ্যকার। ক্রিকেট তাকে এখনো টানে। সে জন্য মাঠে আসেন। কোচ হবেন কিনা এমন প্রশ্নে, ‘আমি ভাবিনি। কখনো ভাবনার অবকাশ হলে চিন্তা করব।’

আর কথা বাড়ালাম না। অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড ম্যাচের ধারাভাষ্য দেবেন তিনি। ছোট্ট করে হেসে হাঁটা দিলেন কমেন্ট্রি বক্সের দিকে। আমি তাকিয়ে আছি, মসৃণ গতিতে হাঁটেন। জীবনটা খুব গোছানো, ঠিক কাভার ড্রাইভের মতো!