advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘দেশে বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ বিরাজ করছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ০০:২১
advertisement

বর্তমানে দেশে বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ বিরাজ করছে। গত ১০ বছর ধরে বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ থাকায় বাংলাদেশের অবস্থাই পাল্টে গেছে। এই অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনই মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান। গতকাল রাজধানীর হোটেল রেডিসন ব্লুতে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) উদ্যোগে ২০২০ সালের মধ্যে প্রান্তিক ২৪ হাজার উদ্যোক্তা সৃষ্টির লক্ষ্যে ‘উদ্যোক্তা সৃষ্টি ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্পের’ প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণের সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব মন্তব্য করেন। সালমান এফ রহমান আরও বলেন, স্বাধীনতা আমাদের সব চেয়ে বড় অর্জন, অহঙ্কার ও প্রত্যাশার জায়গা। স্বাধীনতার এই সুযোগ ব্যবহার করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে অনেক দূর। সেই সঙ্গে জানতে হবে আমাদের ইতিহাস, তুলে ধরতে হবে আমাদের ঐতিহ্য, আত্মবিশ্বাসটা রেখে দিতে নিজের কাজে আমিও পারি এই বিশ্বাসে। বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান ও সম্মানিত অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজিবিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান বলেন, তারুণ্যের শক্তি, বাংলাদেশের সমৃদ্ধি। তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টি ও দক্ষতা উন্নয়নে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ সেই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে । তিনি বলেন, তারুণ্যের শক্তি, বাংলাদেশের সমৃদ্ধি’ প্রকল্পের মাধ্যমে সমৃদ্ধ হবে দেশের তরুণ সমাজ, দেশব্যাপী গড়ে উঠবে নতুন নতুন উদ্যোক্তা, প্রশিক্ষকদের দায়িত্ব হবে মাঠপর্যায়ে থেকে নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি করা ও সব সময় তাদের সহযোগিতা, মনোবল বৃদ্ধি করা। সম্মানিত অতিথি মো. আবুল কালাম আজাদ প্রশিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, তরুণরাই একটি দেশের প্রাণশক্তি। তারুণ্যের শক্তি ও গতিশীলতায় একটি দেশ উন্নয়নের চরম শিখরে পৌঁছে যেতে পারে। আমাদের এ মানসিকতা নিয়ে এগোতে হবে যে, নিজে চাকরি চাই না, চাকরি দিতে চাই।

advertisement