advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সুবর্ণচরে চেয়ারম্যানের কেয়ারটেকারের ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু, সাংবাদিকের ওপর হামলা!  

সুবর্ণচর প্রতিনিধি
১২ জুলাই ২০১৯ ১৪:২৭ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ১৪:৩০
advertisement

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় ২ নম্বর চরবাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেনের বাড়ির কেয়ারটেকার ইসমাইলের (৪৮) মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। তবে বলা হচ্ছে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন। এদিকে এ ঘটনার সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে একজন সাংবাদিককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের ওই চেয়ারম্যানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত ওই কেয়ারটেকারের বাড়ি হাতিয়া উপজেলায়। পুলিশ নিহতের সম্পূর্ণ পরিচয় এখনো জানাতে পারেনি।

জানা যায়, কেয়ারটেকারের মৃত্যুর পর বৃহস্পতিবার সময়ের কণ্ঠস্বরের স্টাফ রিপোর্টার ও চ্যানেল এস টিভির সুবর্ণচর প্রতিনিধি মোহাম্মদ ইমাম উদ্দিন সুমন সংবাদ সংগ্রহ করতে যান। এ সময় চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে কয়েকজন তার ওপর হামলা চালায়।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক সুমন মুঠোফোনে বলেন, ‘কেয়ারটেকারের মৃত্যুর সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা হত্যার উদ্দেশ্যে আমার ওপর হামলা চালায়। ঘটনাস্থল থেকে আসার পর ০১৮৩১৯৪৭১৩৪ নম্বরসহ একাধিক নম্বর থেকে আমাকে গুম ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।’

এ ব্যাপারে সুমন বাদী হয়ে চরজব্বার থানায় একটি মামলা করেছেন বলেও জানান তিনি।

তবে চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন জানান, তার বাড়ির কেয়ারটেকার বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন। এ সময় সাংবাদিকের ওপর হামলা বিষয়ে প্রশ্ন করার সঙ্গে সঙ্গে তিনি মুঠোফোনের সংযোগ কেটে দেন।

চরজব্বর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাহেদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি কেয়ারটেকারের মৃত্যু বিদ্যুৎস্পৃষ্টে হয়েছে। তারপরও যেহেতু এ মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে, তাই আমরা লাশ উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছি। ময়নাতদন্তে রিপোর্ট হাতে পেলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।’

আপনার সামনে সাংবাদিকের ওপর হামলা হয়েছে-এমন প্রশ্ন করলে ওসি বলেন, ‘আমার সামনে হামলা হয়নি। আমি দেখেছি কথা কাটাকাটি হয়েছে। ’

advertisement