advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ত্রিশালের ইউএনও'র বদলির প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ত্রিশাল প্রতিনিধি
১২ জুলাই ২০১৯ ২২:৩৯ | আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯ ২২:৪২
advertisement

ময়মনসিংহের ত্রিশালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বদলির আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে মানববন্ধন করেছে স্থানীয় নজরুল একাডেমি স্কুলের শিক্ষার্থীরা। অভিযোগ উঠেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এই মানববন্ধনে লাঠিপেটা করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় নজরুল একাডেমি স্কুলের অন্তত ১০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা গেছে, আবদুল্লাহ আল জাকির নামে এক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ছয় মাস আগে ত্রিশালে আসেন। তিনি আসার পর নজরুল একাডেমি বিদ্যালয়ে অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন আসে। আবদুল্লাহ আল জাকির বিদ্যালয়টির গুণতম মান বাড়ানোর জন্য মাঝেমধ্যে নিজে ক্লাস নিতেন। এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান, উপস্থিতি বাড়ার পাশাপাশি নিয়মিত অ্যাসেম্বলি হচ্ছে। ইউএনও স্কুলে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের নিয়ে নিয়মিত অভিভাবক সমাবেশ করতেন। এসব কারণে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা ইউএনওকে বিদ্যালয়ে ইতিবাচক পরিবর্তনের কৃতিত্ব দেন। গত ৮ জুন ইউএনও আবদুল্লাহ আল জাকিরের বদলির আদেশ হয়। এতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করতে শুরু করে।

বৃহস্পতিবার সকালে ইউএনও'র বদলির আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে মানববন্ধন শুরু করে নজরুল একাডেমির শিক্ষার্থীরা। দরিরামপুর এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে তারা মানববন্ধনে অংশ নেয়। এ সময় পুলিশের কয়েকজন সদস্য সেখানে এসে শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা শুরু করে। এ ঘটনায় ১০ জন আহত হয়।

পুলিশের লাঠিপেটায় গুরুতরভাবে আহত নিশাত সরকার নামে এক শিক্ষার্থীকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কয়েকজন স্কুলছাত্র জানায়, ইউএনওর বদলির আদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে তারা শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন করে। পুলিশ হঠাৎ তাদের ওপর লাঠিপেটা শুরু করে।

তবে পুলিশ এ অভিযোগ অস্বীকার করে জানায়, সকালে চীনের রাষ্ট্রদূত ঢাকা থেকে সড়কপথে ময়মনসিংহে যাচ্ছিলেন। তাই শিক্ষার্থীদের সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। কাউকে লাঠিপেটা করা হয়নি।

ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান দাবি করে বলেন, রাষ্ট্রদূত যখন ভালুকা ছাড়িয়ে ময়মনসিংহে যাওয়ার সময় রাস্তা অবরুদ্ধ দেখে শিক্ষার্থীদের সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। লাঠিপেটার অভিযোগ মিথ্যা।

ইউএনও আবদুল্লাহ আল জাকির, সংবাদ পেয়েও উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করায় ঘটনাস্থলে তিনি যেতে পারেননি। তবে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন প্রত্যাহার করার জন্য সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) পাঠান।

advertisement