advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যে ভিডিও বার্তায় হজের কপাল খুলল ১৪০ বছরের বৃদ্ধের

অনলাইন ডেস্ক
২০ জুলাই ২০১৯ ১৭:২৮ | আপডেট: ২০ জুলাই ২০১৯ ১৭:২৮
advertisement

১৪০ বছরের এক বৃদ্ধের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন হজ পালন করার। কিন্তু তার সেই আর্থিক সঙ্গতি ছিল না। অবশেষে এক মানবিক ভিডিও বার্তা ও আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় এ প্রবীণ ব্যক্তির হজে যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হতে চলছে।

সংবাদমাধ্যম আরব নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্দোনেশিয়ার ১৪০ বছরের এক ব্যক্তি হজ পালনের স্বপ্ন দেখেন। আর্থিকভাবে অসহায় এই প্রবীণ ব্যক্তিকে নিয়ে পরিবারের দুই সদস্য বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের কাছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভিডিও বার্তায় হজের আবেদন জানান। আর তাতেই তাদের ভাগ্য খুলে যায়।

ভিডিও বার্তায় বয়োবৃদ্ধ এক ব্যক্তিকে মাঝে বসিয়ে বাদশাহ সালমানকে উদ্দেশ্য করে দুই নারী বক্তব্য দেন। তাদের বক্তব্যে হজের আগ্রহ ও ইচ্ছার কথা উঠে আসে।

ভিডিও বার্তার এ আবেদনে তারা জানান, এই বৃদ্ধ ব্যক্তি সম্পর্কে তাদের দাদা হন। এ ব্যক্তির রয়েছে হজের একান্ত আকাঙ্খা। কিন্তু আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে তাকে হজ করানোর সক্ষমতা তাদের নেই। তারা অসহায়। যদি তারা বাদশাহর পৃষ্ঠপোষকতা পান, তবে তাদের হজের এ প্রত্যাশা ও স্বপ্ন পূরণ হতে পারে।

ভিডিওতে বাদশাহ সালমানসহ যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। এ ভিডিও বার্তা ইতিমধ্যে তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষমও হয়েছে। ফলে অসহায় ওই বৃদ্ধের মনোবাসনা পূরণ হতে চলেছে।

আরব নিউজের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১৬ জুলাই ইন্দোনেশিয়ায় নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ইসাম বিন আব্দ আল-থাকাফি সৌদি কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাদেরকে দূতাবাসে সাক্ষাতের জন্য ডেকে নেন।

এ দরিদ্র পরিবার এ বছরই সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় হজ পালনের জন্য পবিত্র নগরী মক্কায় যাচ্ছে। খুব কাছাকাছি সময়েই তারা হজের উদ্দেশে রওনা হবেন।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের সর্বাধিক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ইন্দোনেশিয়া। দেশটিতে এখন যদি কেউ হজে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন তবে অর্থ সম্পদ থাকলেও তিনি ২০৩৫ সালের আগে হজে যেতে পারবেন না। কোটা ব্যবস্থার কারণে তাকে অপেক্ষা করতে হবে দীর্ঘ ১৫ বছর। ২০৩৪ সাল পর্যন্ত যারা হজে যাবেন, ইতিমধ্যে তাদের হজের রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে গেছে। এখন চলছে ২০৩৫ সালের হজ রেজিস্ট্রেশন।

 

advertisement