advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ছাত্রকে কোপালেন বোরকাপরা নারী, গ্রাম জুড়ে ‘ছেলেধরা’ গুজব

সাঁথিয়া প্রতিনিধি
২১ জুলাই ২০১৯ ২০:১১ | আপডেট: ২২ জুলাই ২০১৯ ০৯:৫৪
advertisement

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলায় সপ্তম শ্রেণির ছাত্রকে বোরকাপরা এক নারী দা দিয়ে কুপিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার পর পুরো গ্রামে ‘ছেলেধরা’ গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। গতকাল রোববার এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি, সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে একটি মহল এমন ‘ষড়যন্ত্র’ করছে।

আহত ছাত্র আতিকুর রহমানকে (১৩) সাঁথিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সে উপজেলার ঘুঘুদহ গ্রামের ইয়াকুবের ছেলে।

জানা গেছে, রোববার সকাল ৮টার দিকে স্কুলে যাওয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয় আতিকুর। পথে তার ওপর হামলা করে বোরকাপরা এক নারী।

হাসপাতালে গিয়ে আতিকুর রহমানের সঙ্গে কথা হলে সে জানায়, স্কুলে যাওয়ার পথে কালো বোরকাপরা এক নারী তারে কাছে আসেন। সাদা কাগজে লেখা কিছু পড়তে দেন তাকে। সে পড়তে শুরু করলে ওই নারী তার ব্যাগ থেকে ছোরা বের করে তাকে আঘাত করার চেষ্টা করেন।

এ সময় চিৎকার করে আতিকুর। ওই নারী এ সময় তার বা হাতে আঘাত করে পালিয়ে যান।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, ছোরার আঘাতে আতিকুরের বা হাতের প্রায় ৩ ইঞ্চি কেটে গেছে। তাকের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আতিকুরের চিৎকার শুনে তারা এগিয়ে আসেন। ছেলেধরা তাকে আঘাত করে পালিয়ে গেছে জানতে পেরে ওই এলাকায় ও আশেপাশের পাট ক্ষেতগুলোতে ৪/৫ ঘণ্টা তল্লাশী চালান তারা। কিন্তু সন্দেহজনক কাউকে খুঁজে পাননি।

এদিকে এ ঘটনা পুরো গ্রামে চাউর হয়ে গেলে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন বাসিন্দারা। উপজেলাব্যাপী খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন স্কুল ছুটি ঘোষণা করেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। এ সময় প্রতিষ্ঠানগুলোর বাইরে অভিভাবকদের ভিড় লেগে যায়।

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন এ বিষয়ে বলেন, ‘ছেলেধরা’ হামলা করেছে কথাটি পুরোটাই গুজব। হতে পারে অন্য কেউ নিজের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশে এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। আমি আহত ছাত্রের বাবা ও মায়ের সাথে কথা বলেছি। আতিকুর এখন হাসপাতালে ভর্তি আছে।

ওসি জাহাঙ্গীর আরও বলেন, ‘সরকারকে বেকায়দায় ও আইন শৃংখলার অবনতি ঘটনার জন্য কোনো স্বার্থান্বেষী এমন গুজব ছড়াচ্ছে। ঘটনার ব্যাপারে তদন্ত হবে।’ তিনি উপজেলাবাসীকে এমন গুজব ছড়াতে ও আইন নিজের হাতে তুলে না নিতে আহ্বান জানান।

advertisement