advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কাশ্মীর ইস্যুতে ট্রাম্পের মধ্যস্থতা চাওয়ার কথা অস্বীকার ভারতের

অনলাইন ডেস্ক
২৩ জুলাই ২০১৯ ১৪:২৫ | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০১৯ ১৭:০৮
advertisement

পাকিস্তানের সঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতা করার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আহ্বান জানানোর বিষয়টি অস্বীকার করেছে ভারত। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কাশ্মীর ইস্যুতে নরেন্দ্র মোদি তাকে মধ্যস্থতা করার আহ্বান জানিয়েছেন- ট্রাম্পের এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই তথ্য জানালো।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সকল ইস্যু একমাত্র দ্বিপক্ষীয়ভাবে আলোচনা করা হয়েছে।

গত সোমবার পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমরান খানের সঙ্গে ওভাল অফিসে আলোচনায় বসেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। আলোচনা শেষে তারা সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। ইমরান খানকে যখন কাশ্মীর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার গত ৭০ বছর ধরে চলমান বিতর্ক নিয়ে প্রশ্ন করা হয় তখন তিনি বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মতো একজন দ্বারা পরিচালিত বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর রাষ্ট্রের পক্ষেই ভারত ও পাকিস্তানকে সমঝোতায় আনা সম্ভব।’

তখন ট্রাম্পও বলেন, ‘গত দুই সপ্তাহ আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে আমার এই ব্যাপারে কথা হয়েছে। তখন তিনি আমাকে বলেছিলেন আমি এই ব্যাপারে মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব নিতে পারি কিনা। আমি বললাম “কোন ব্যাপারে?” তিনি বললেন “কাশ্মীর। কেননা বিষয়টি অনেক অনেক বছর ধরে অমীমাংসিত রয়ে গেছে”।’

সুযোগ পেলে তিনি মধ্যস্থতা করতে সানন্দে রাজি আছেন বলে সেসময় জানান ট্রাম্প।

এদিকে, ট্রাম্পের এমন বক্তব্যের দ্রুত জবাব দিয়েছে ভারত। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার আজ মঙ্গলবার এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘আমরা সাংবাদিকদের কাছে তার (ট্রাম্প) মন্তব্য দেখেছি। কিন্তু ভারত এমন কোনো অনুরোধ তাকে করেনি। ভারত সবসময়ই পাকিস্তানের সঙ্গে সকল অমীমাংসিত ইস্যুর দ্বিপক্ষীয় সমাধান চেয়েছে।’

ভারতের রাজনীতিবিদ শশী থারুরও ট্রাম্পের মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন। টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘তিনি (ট্রাম্প) কী মন্তব্য করেছেন সে ব্যাপারে তার বিন্দুমাত্র ধারণাও নেই। মোদি কী বলেছেন সেটা হয় তিনি বোঝেননি, নয়ত তাকে ভালোভাবে জানানো হয়নি।’ 

প্রসঙ্গত, ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই পুরো কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করলেও দুই দেশই সেখানকার কিছু কিছু অংশ নিয়ন্ত্রণ করে। ১৯৮৯ সাল থেকে কাশ্মীরে নিয়মিত সহিংসতায় ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছে বলে ধারণা করা হয়। গত ফেব্রুয়ারিতে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪৪ জন ভারতীয় আধা সামরিক বাহিনীর সদস্য নিহত হওয়ার ঘটনায় দেশটি পাকিস্তানকে দায়ী করে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই জঙ্গি প্রশিক্ষণ ঘাঁটি দাবি করে পাকিস্তানে এয়ার স্ট্রাইক চালায় ভারত। এরপর থেকেই দুই দেশের মধ্যে কাশ্মীর কেন্দ্রিক উত্তেজনা আবার বৃদ্ধি পেয়েছে। 

advertisement