advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সাত কলেজবিরোধী আন্দোলন প্রতিহতের ঘোষণা ছাত্রলীগের

বিশ^বিদ্যালয় প্রতিবেদক
২৪ জুলাই ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ জুলাই ২০১৯ ০২:৪৫
advertisement

টানা তিনদিন ধরে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনগুলোতে তালা ঝুলিয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা। তবে গতকাল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেই তালা ভেঙে প্রশাসনকে স্মারকলিপি দেয়। সেই সঙ্গে কেউ আন্দোলন করলে তা প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছে। তবে পিছিয়ে যায়নি শিক্ষার্থীরাও। অন্যান্য দিনের মতোই দাবি আদায়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ভিসি চত্বরে অবস্থান নেয়। দুপুর ১টার দিকে অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে দিনের আন্দোলন স্থগিত করে।

এদিকে, দুপুর ১টার দিকে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে সাত কলেজের সংকটের স্থায়ী সমাধান ও ঢাবির শিক্ষার পরিবেশ সচল রাখার দাবিতে সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। পরে অপরাজেয় বাংলা থেকে মিছিল নিয়ে উপাচার্য কার্যালয়ের প্রধান ফটকে গিয়ে তালা ভাঙতে উদ্যত হয় সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। এ সময় আগে থেকেই অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীরা তাদের বাধা দেয়। তখন ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক শিক্ষার্থীদের পক্ষ নিলে বাগবিত-া হয়। একপর্যায়ে তাদের সরিয়েই তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। উপাচার্য দেশে না থাকায় উপউপাচার্য অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদের কাছে তারা স্মারকলিপি দেয়। সেই সঙ্গে ভিপি নুর ও সমাজসেবা সম্পাদক আখতারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানায়।

ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে বলা হয়Ñ উপাচার্যের কাছে ছাত্রলীগ আহ্বান জানাচ্ছে যে, ছাত্রসমাজের প্রতি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক অভিভাবকত্ব রয়েছে। তা বিবেচনায় রেখে সাত কলেজসংক্রান্ত সাম্প্রতিক সংকটের একটি দ্রুত স্থায়ী সমাধান হোক। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় ও সাত কলেজের প্রতিটি শিক্ষার্থী যেন নির্বিঘেœ ক্লাসরুমে ফিরে যেতে এবং পরীক্ষায় অংশ নিতে পারে, তা নিশ্চিত করার দাবি জানাচ্ছি। সমাবেশে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘আমরা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আগস্টের প্রথম সপ্তাহে আলোচনা করে সমাধানের আশ^াস দিয়েছেন। ছাত্রলীগ ডাকসুর সঙ্গে বসে এ সংকটের সমাধান করবে।

ডাকসুর ওপর আস্থা রাখুন। আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করব। তবে ক্লাস-পরীক্ষা চলমান রাখতে চাই। যেখানে আলোচনা করে সমাধান করা যাবে, সেখানে আন্দোলনের প্রয়োজন নেই। আগস্টের প্রথম সপ্তাহে সংকটের সমাধান না হলে ছাত্রলীগই আন্দোলনে নামবে। এর পরও যারা শিক্ষার্থীদের ভুল বুঝিয়ে ক্লাস-পরীক্ষা ব্যাহত করতে চায়, তাদের ভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে।’ এ সময় আরও বক্তব্য দেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ।

advertisement