advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শেষ হলো বাংলারলোক নাট্যপ্রয়াসের আয়োজনে নাট্য উৎসব

কলকাতা প্রতিনিধি
২৫ জুলাই ২০১৯ ১৮:০৮ | আপডেট: ২৬ জুলাই ২০১৯ ১২:১৫
advertisement

পশ্চিমবঙ্গের বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রযোজনা ভিত্তিক সংগঠন বাংলারলোক নাট্যপ্রয়াস এর আয়োজনে দুই দিনব্যাপী নাট্য উৎসব শেষ হয়েছে। গত ২১ ও ২২ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের গোবরডাঙা নকশার সহযোগিতায় দুইদিনের অনুষ্ঠানমালায় ভারত ও বাংলাদেশের তিনটি নাটক উপস্থাপিত হয়।

প্রথম দিন মানুষের মঙ্গল কামনায় সূত্রপাত নৃত্যের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা। নৃত্য পরিবেশন করেন বাংলারলোক নাট্যপ্রয়াস এর প্রীতম বিশ্বব্যপী ধর্মীয় বিভেদ আর নারীর প্রতি ঘটমান নৃশংসতার প্রতিবাদ প্রতিধ্বনিত হল যেন সমস্ত উৎসব জুড়ে। 

পশ্চিমবঙ্গের নাট্যব্যক্তিত্ব আশিষ দাসের সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা কথন ও অতিথি বচনের মধ্য দিয়ে সূত্রপাত পর্বের সমাপ্তি ঘটে।

এ পর্বে দর্শকের সামনে বক্তব্য তুলে ধরেন বাংলারলোক নাট্যপ্রয়াস এর সভাপতি ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক  হীরক মুশফিক,  একই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক আল জাবির, রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববদ্যালয়ের নাটক বিভাগের অধ্যাপক ড.বিশ্বিজৎ মন্ডল, প্রতিবিম্ব থিয়েটার কুমিল্লার সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী এবং রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের  চারুকলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. দেবাশীষ মণ্ডল।

প্রথমদিনের নাট্য আয়োজনের শুরুতে পরিবেশিত হয় ময়মনসিংহ গীতিকা অবলম্বনে বাংলারলোক নাট্যপ্রয়াসের নাটক 'চন্দ্রাবতী'। নাটকটির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেন বিলকিস মীর। এছাড়াও ছিলেন সুজন, সজল, তুষা, আনা, কৌশিকী, উদয়, তূর্য, শুভদ্বীপ, এমদাদ, তন্দ্রা প্রমূখ। হীরক মুশফিকের নির্দেশনায় সহযোগিতা করেন সজল ভৌমিক।

বিখ্যাত অভিনেত্রী বিনোদিনীর নিজের সাথে নিজের কথোপকথন নিয়ে নাটক 'বিনোদিনী' উৎসবের দ্বিতীয় নাটক। গোবরডাঙা নকশার এ প্রযোজনাটির নির্দেশনা দেন আশিষ দাস। দ্বিতীয় দিনের আয়োজনে উপস্থিত হয় জয়দেব বসুর ভারত এক খোঁজ কবিতা অবলম্বনে আতিকুর রহমানের রচনা ও নির্দেশনায় বাংলাদেশের কুমিল্লা কলেজ থিয়েটারের নাটক 'জন্মা' ধর্মীয় ভেদাভেদ আর সামাজিক অবক্ষয় ও তার পরিনতি এ নাটকের পুরোটা জুড়ে। 

‌উৎসবের সমাপনীতে গোবরডাঙা সংস্কৃতি কেন্দ্র মিলনায়তনে অংশগ্রহণকারী এবং দর্শক নিজের জন্মভূমিকে স্মরণ করে সমবেত কণ্ঠে গেয়ে ওঠেন ডি এল রায়ের লেখা গান 'ধন ধান্য পুষ্পে ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা ' গানটি। দুই বাংলার নাট্যপ্রেমীদের নিয়ে এই ভিন্ন উৎসব আয়োজন স্মরণে থাক সকলের এমনটিই প্রত্যাশায় আয়োজকদের।

advertisement