advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

জীবনে সফল হতে চাইলে এড়িয়ে চলবেন যেসব কাজ

অনলাইন ডেস্ক
৬ আগস্ট ২০১৯ ০৯:৫৭ | আপডেট: ৬ আগস্ট ২০১৯ ১৬:১৩
advertisement
advertisement

জীবনে সফল হওয়ার সুপ্ত ইচ্ছা আমাদের সকলের মাঝেই আছে। সাফল্য কোনো মরীচিকা নয় যে, সারাজীবন অধরাই থেকে যাবে। সফলতা শব্দটি একেকজনের কাছে একেক রকম। কেউ হয়তো ঠিকমত দুবেলা খেতে পেয়ে সফল, কারো মতে দু-চারটি গাড়ি কিনে সে সফল। 

সফলতার দৃষ্টিভঙ্গি একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম হলেও, কিছু বিষয় মেনে চললে খুব সহজেই সফলতাকে হাতের মুঠোয় নিয়ে আসা সম্ভব। সফলতা মানেই আপনাকে শিক্ষাগত যোগ্যতায় অনেক বড় হতে হবে বা আপনার দু’চারটি গাড়ি থাকতে হবে এমন নয়, বরং মানসিকভাবে শিক্ষিত হওয়া এমনকি মানসিকভাবে সফল হওয়াটা হচ্ছে মূল উদ্দেশ্য।

বিশ্বাস রাখতে হবে মানসিকভাবে সফল হতে পারলেই আপনি জীবনের সকল ক্ষেত্রে সফল। কেননা আপনি যখন একজন ভালো মানুষ, তখন সেই ভালো মনুষ্যত্বের কৃতিত্ব আপনার যেকোনো সফলতাকে ছাড়িয়ে যাবেই। 

জেনে নিন একজন সফল মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে হলে কোন বিষয়গুলো এড়িয়ে চলতে হবে-

কথা কম বলুন, বেশি শুনুন

সবসময় কথা বলবেন না। আগে বিষয়টি ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করুন। পরে বুঝে উত্তর দিন। কারণ যেকোনো বিষয় সম্পর্কে আপনার মতামত আপনার ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তোলে।

মনের বিরুদ্ধে কিছু করবেন না

অনেক সময় ইচ্ছার বিরুদ্ধেই আমরা কাজ করি। যা আমাদের সফলতার পথের প্রধান বাধা। ‘না’ বলার জন্য মানুসিকভাবে প্রস্তুত থাকুন। সফল হতে চাইলে যে বিষয়ে মন সায় দেবে না সেটা ভুলেও ‘হ্যাঁ’ বলবেন না। কারণ নিজের মনের ওপরে জোর দিয়ে সাময়িক  ভালো হলেও সেটা ভবিষ্যতের জন্য খারাপ হবে। 

নিজের দুর্বলতাকে পাত্তা দেবেন না

কোনো মানুষই পৃথিবীতে পারফেক্ট না। সবারই কিছু না কিছু দুর্বলতা থাকে। আর আপনি যদি নিজের দুর্বলতাকে বড় করে দেখেন আর ভাবেন এটা আপনাকে দিয়ে সম্ভব না তাহলে কখনোই সফল হতে পারবেন না। নিজের দুর্বলতাকে নিজের শক্তি বানান। দেখবেন, সহজেই সফলতাকে আপনাকে ধরা দেবে।

অপরকে পরিবর্তন করার চেষ্টা করবেন না

কখনোই কোনো কিছু করার জন্য কাউকে বাধ্য করবেন না। কেননা প্রত্যেকের নিজস্ব কিছু অবস্থান রয়েছে, যেখান থেকে সে স্বাধীনভাবে তার সিদ্ধান্তগুলো নিতে পারবে। অবশ্যই আপনি তার শুভাকাঙ্ক্ষী জানাতে পারেন কোন কাজগুলো তার জন্য ঠিক বা ঠিক নয়। কিন্তু সেগুলোকে পরিবর্তন করার জন্য আপনি তাকে জোর করতে পারেন না। আর তাই অপরকে পরিবর্তনের চেষ্টা করবেন না। একেক জনের চাওয়া-পাওয়া একেক রকম হবে বিষয়টি যত সহজে মেনে নিতে পারবেন তত বেশি ভালো থাকা সম্ভব।

নেতিবাচক চিন্তাগুলো ঝেড়ে ফেলুন

নিজের আত্মবিশ্বাস ধরে রাখতে মনের সব নেতিবাচক চিন্তা ঝেড়ে ফেলুন। আমি পারব না, আমাকে দিয়ে হবে না, আমার চেয়ে অন্যরা ভালো পারে- এ ধরনের চিন্তা যতদিন ধরে রাখবেন, ততদিন সফলতা আপনার থেকে অনেক দূরে থাকবে। আগে চেষ্টা করুন। সফলতা একদিন আসবেই।

মানতে হবে সকলকে খুশি করা সম্ভব নয়

সকলকে সুখী-খুশি করা সম্ভব নয়। সবার মন মতো আপনি সবকিছু করতে পারবেন এমনটা কখনোই সম্ভব নয়। সেই কাজগুলো করুন, যেগুলো আপনাকে মানসিকভাবে খুশি রাখতে পারছে। অন্যকে খুশি করা অনেক বেশি কঠিন, বরং নিজের সন্তুষ্টি আনাটা অনেক বেশি সহজ। আর তাই অপরকে খুশি করার ব্যর্থ চেষ্টা না করে নিজের সন্তুষ্টির জন্য কাজ করুন।

অতীতকে জোর করে ধরে রাখবেন না

অতীতে যা ঘটে গেছে, সেটার জন্য নিজের ভবিষ্যৎ নষ্ট করে লাভ কিছুই নেই। অতীতে বসবাস করলে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ দুটোই নষ্ট হবে। বরং অতীতের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিন।

নেতিবাচক চিন্তার মানুষদের কাছ থেকে দূরে থাকুন

আমাদের জীবনে অন্যের কথার বেশ প্রভাব পড়ে। নিজের অজান্তেই সেই কথাগুলো আমাদের সফলতাকে নষ্ট করে। জীবনে ভালো কিছু করতে চায় এমন মানুষের সঙ্গে চলাফেরা করুন।

বাইরের চাকচিক্য বিবেচনা করবেন না

একটি বিষয় বাইরে থেকে যতটুকুই দৃষ্টিনন্দন দেখাক না কেন, আপনার জ্ঞানী মন-মানসিকতায় ভেতরের ব্যাপারটিকে বের করে নিয়ে আসতে পারবে। আর তাই বাইরের চাকচিক্য দেখে সেই ব্যাপারটিকে ঠিক বা সঠিক বিবেচনা বিবেচনা করা উচিত নয়। বরং প্রত্যেকটি বিষয়কে গভীরভাবে ভেবে, সে বিষয়টির আসল দিকটি উন্মোচন করাই জ্ঞানী মনের কাজ। আর তাই বাইরে থেকে কোনোকিছু বিবেচনা করা উচিত নয়।

পৃথিবীর কোনো কিছুই স্থায়ী নয়, সমস্যাগুলোও নয়

জীবনে সমস্যা থাকবেই। সমস্যা যাই হোক, তার সমাধান আছে। একটু খুঁজুন, পেয়ে যাবেন। হতাশ না হয়ে হাসিমুখে সমস্যাগুলোকে মোকাবেলা করুন। মনেপ্রাণে বিশ্বাস করুন, সমস্যা সাময়িক। দেখবেন, খুব সহজেই আপনি সমস্যার ভেতর থেকে বেরিয়ে আসতে পারছেন।

advertisement