advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ঈদযাত্রায় ঝরেছে ২৯৯ প্রাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
২১ আগস্ট ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ আগস্ট ২০১৯ ০১:৩৮
advertisement

এবারের ঈদুল আজহায় দেশের সড়ক, রেল ও নৌপথে ২৫০টি দুর্ঘটনায় ২৯৯ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ৭৮৮ জন। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেছে যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

সংগঠনটির সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিএম কামরুল ইসলাম জানান, ঈদযাত্রা শুরুর দিন ৬ আগস্ট থেকে কর্মস্থলে ফেরার সময় ১৮ আগস্ট পর্যন্ত ধরা হয়েছে। এ সময়কালে দেশের সড়ক-মহাসড়কে ১৯৯টি দুর্ঘটনায় ২৫৩ জন নিহত ও ৭৬৫ জন আহত হয়। নৌপথে ২১টি দুর্ঘটনায় ১৬ জন নিহত, ৫১ জন নিখোঁজ ও ২৩ জন আহত হয়েছে। এ ছাড়া রেলপথে ট্রেনে কাটা পড়ে পূর্বাঞ্চলে ২১ জন ও পশ্চিমাঞ্চলে ৯ জন নিহত হয়।

সময়সূচির ভয়াবহ বিপর্যয়, অনিয়ম, সড়ক, রেল, নৌ ও আকাশপথে ভাড়া নৈরাজ্য, ফেরি ও লঞ্চ চলাচলে বিঘœ, সদরঘাটসহ নৌ টার্মিনালগুলোয় ভোগান্তি, লোভ ও শৈথিল্যেও বিপর্যয়, নারী যাত্রীদের হয়রানির মধ্য দিয়ে এবারের ঈদযাত্রা শেষ হলেও দুর্ঘটনা তুলনামূলক কম ছিল বলে জানায় সংগঠনটি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, যাত্রাপথে বাস, লেগুনা, নৌকা ও বিরতি রেস্তোরাঁয় ধর্ষণের শিকার হয়েছেন চার নারী যাত্রী। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২১ জেলার ৬৩৫ কিলোমিটার সড়ক-মহাসড়কে দুর্ভোগ বেশি হয়েছে। প্রবল স্রোত ও বাতাসের কারণে পদ্মায় ফেরি পারাপার বিঘিœত হওয়ায় লঞ্চে যাত্রীদের চাপ বেড়েছিল। ভোগান্তি এড়াতে আকাশপথে যাত্রীসাধারণের চাহিদা বেশি থাকায় উচ্চমূল্যেই বিক্রি হয়েছে অভ্যন্তরীণ রুটের বিমানের টিকিট। ফ্লাইটের সংখ্যাও ছিল প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম।

advertisement