advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের সামনে ভুটান

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২৩ আগস্ট ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ আগস্ট ২০১৯ ২৩:১৫
advertisement

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ ভুটান। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কল্যাণী স্টেডিয়ামে দুপুর সাড়ে ১২টায় শুরু হবে ম্যাচটি। জয়কে পাখির চোখ করেছে বাংলাদেশ। দিনের অপর ম্যাচে নেপালের প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা। নেপালে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে ৫-০ গোলের বড় ব্যবধানে হারলেও, শ্রীলংকা ৩-২ গোলে পরাজিত করেছে ভুটানকে।

সাফের এই আসরে বাংলাদেশের রেকর্ড বেশ সমৃদ্ধ। আগের পাঁচ আসরের দুটিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ২০১৫ সালে তৃতীয় আসরে সিলেটে অনুষ্ঠিত ফাইনালে টাইব্রেকারে ভারতকে ৪-২ (১-১) হারিয়ে; গত বছর পাকিস্তানকে টাইব্রেকারে ৩-২ (১-১) গোলে হারিয়ে শিরোপা জেতে লাল-সবুজের কিশোররা। টুর্নামেন্টে এবারও শিরোপায় চোখ বাংলাদেশের। গত বছর নেপাল থেকে ট্রফি জিতে ঘরে ফিরেছিল বাংলার খুদে ফুটবলাররা; এবার ভারতে বাজিমাত করতে চায়।

পরিসংখ্যান বলছে ভুটান থেকে বহুগুণে এগিয়ে বাংলাদেশের ছেলেরা। পূর্বের দেখায় বরাবরই জয়টা ছিল লাল-সবুজদের ঝুলিতে। আর সেগুলো বেশ বড় ব্যবধানেই। ২০১৭ সালে এ-গ্রুপে খেলেছিল বাংলাদেশ। গ্রুপপর্বে ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়ে দিয়েছিল লাল-সবুজের ছেলেরা। সেবার গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে উঠলেও ফাইনাল খেলা হয়নি বাংলাদেশের। কারণ সেমিফাইনালে নেপালের কাছে ৪-২ গোলে হেরে গিয়েছিল তারা।

অন্যদিকে একই গ্রুপের রানার্সআপ হয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করলেও ভারতের কাছে ৩-০ গোলে হেরে বিদায় নেয় ভুটান। ফলে সেমিফাইনালের পরাজিত দল হিসেবে স্থাননির্ধারণী ম্যাচে আবার মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ ও ভুটান। ওই ম্যাচে ৮-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে জিতে তৃতীয় হয় লাল-সবুজরা। এবারের আসরেও শুরুটা ভালো হয়নি ভুটানের। প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকার কাছে ৩-২ গোলের ব্যবধানে হেরেছে ভুটান। এবার টুর্নামেন্ট হচ্ছে রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে। তাই প্রতিটি দলের জন্যই অন্য দলের ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ। গ্রুপের সেরা দুই দল খেলবে ফাইনাল।

ছেলেদের বয়সভিত্তিক সাফ টুর্নামেন্ট হয়ে আসছে ২০১১ সাল থেকে। প্রথমবার থেকেই এই টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে আসছে বাংলাদেশ। তখন টুর্নামেন্টটা হতো সাফ অনূর্ধ্ব ১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ নামে। প্রথম আসরেই সেমিফাইনাল খেলেছিল লাল-সবুজরা। তবে সেখানে পাকিস্তানের কাছে ২-০ গোলে হেরে তৃতীয় স্থানের জন্য লড়াই করে। সেখানে নেপালের কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে হেরে চতুর্থ হয় তারা। এর পর ২০১৩ সালে বি-গ্রুপে রানার্সআপ হিসেবে সেমিফাইনাল খেলে বাংলাদেশ। নেপালকে টপকানো সম্ভব হয়নি। ৫-১ গোলের হার নিয়ে লড়াই করতে হয়েছে তৃতীয় স্থানের জন্য। ওই ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ে তৃতীয় হয় বাংলাদেশ। ২০১৫ সালে একই টুর্নামেন্ট হয়েছিল অনূর্ধ্ব-১৬ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ নামে। সেবার টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছিল বাংলাদেশ। তবে ভুটান ওই টুর্নামেন্টে অংশ নেয়নি।

advertisement
Evall
advertisement