advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নাটকের গল্প জীবনের সঙ্গে মিলে যায় : তপু খান

২৪ আগস্ট ২০১৯ ১৮:০৩
আপডেট: ২৪ আগস্ট ২০১৯ ১৮:০৩
advertisement

নাট্যনির্মাতা তপু খান। গত ঈদুল আজহায় দেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার হয়েছে তার নির্মিত প্রায় ১২টি নাটক। এরই মধ্যে তিনি ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন নতুন নাটক নির্মাণের কাজে। সমসমায়িক ব্যস্ততা প্রসঙ্গে দৈনিক আমাদের সময় অনলাইন’র মুখোমুখি হয়েছেন তপু খান।  

ঈদের নাটক নিয়ে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

এক কথায় বললে, বেশ ভালো। এই ঈদে আমার ১২টি নাটক প্রচার হয়েছে। এর মধ্যে দশটি আমি নির্মাণ করেছি। আর দুটি নির্মিত হয়েছে আমার টিমের পক্ষ থেকে। এগুলো নির্মাণ করেছেন আনিসুর রহমান রাজিব ও সৌরভ মল্লিক। সবগুলো নাটকই দর্শকদের বিনোদন দিতে সক্ষম হয়েছে। অনেকে ফোন ও খুদেবার্তা পাঠিয়ে নাটকগুলোর প্রশংসা করছে।

দর্শক প্রশংসায় ‘ফ্রাইডে লাভ’ নাটকটি তো এগিয়ে আছে?

আসলে ‘ফ্রাইডে লাভ’ নাটকটি দর্শকদের চাহিদা পূরণ করতে কিছুটা হলেও সক্ষম হয়েছে। ঈদে আরটিভিতে প্রচার হওয়া এই নাটকটি ইউটিউবে প্রায় সাড়ে ছয় লাখ দর্শক দেখেছেন। ‘ফ্রাইডে লাভ’ নাটকের গল্প জীবনের সঙ্গে মিলে যাওয়ায় এটি সবার পছন্দ হয়েছে। তাছাড়া গল্পের চরিত্রটি তাহসান ও তিশা এমনভাবে ফুটিয়ে তুলেছে, যা সবার নজর কেড়েছে। আমার আরও কিছু নাটকও দর্শক পছন্দ করেছেন। এর মধ্যে আছে ‘ডিল ডান কালচাঁন’, ‘কি করে তোকে ভুলবো’ ও ‘বিয়ে করা বারণ’। নাটকগুলো মোশন রক এন্টারটেইনমেন্ট, এসএস এন্টারটেইনমেন্ট, রঙ্গন ফিল্মস, বিগ ব্যাঙ এন্টারটেইনমেন্ট ও ৩৬০ ডিগ্রির ইউটিউব চ্যানেলে দেখা যাচ্ছে। এগুলোর স্পন্সারে ছিল এস এম সি, জয়া, সান্তুর আর চ্যানেল হিসেবে পাশে পেয়েছি আরটিভি, এনটিভি, বাংলাভিশন, দীপ্ত টিভিসহ বেশ কিছু টিভি চ্যানেল। বর্তমানে আরটিভিতে ‘সময়ে গল্প’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিক নাটক প্রচার হচ্ছে।

নির্মাণের প্রতি ঝোঁক এলো কিভাবে?

ছোটবেলা থেকেই মিডিয়ায় কাজ করার প্রবল ইচ্ছে ছিল। খেলাধুলার প্রতি আমার কখনও, কোনদিন আগ্রহ ছিল না। ছোটবেলায় প্রচুর বই পড়তাম। তখন থেকে ইচ্ছে ছিল, গল্পগুলো মানুষের সামনে তুলে ধরতে। তাছাড়া আমাদের পরিবারের অনেকেই মিডিয়ার সঙ্গে যুক্ত আছেন। দেখতাম, ফ্যামিলিতে তাদের আলাদা একটা অবস্থান রয়েছে। সব মিলিয়ে নির্মাণের পোকা মাথায় ঢুকে।

শুরুর গল্পটা যদি বলতেন...

নিজের ইচ্ছা ও চেষ্টাতেই মিডিয়ায় পা রেখেছি। আমি ঢাকায় বড় হয়েছি। আমাদের নিজেদের একটা গ্রুপ ছিল। শটফিল্ম বানানোর ভাবনা নিয়ে আমরা ঘুরে বেড়াতাম। একদিন পরিচয় হলো নির্মাতা সাইফুল রুবেল ভাইয়ের সঙ্গে। এটা ২০০৮ সালের ঘটনা হবে। তার সহকারী হিসেবে বেশ কিছুদিন কাজ করলাম। এভাবেই মিডিয়ায় পথচলা শুরু। নিজে প্রথম কাজ ছিল বাংলাভিশনে ‘অ-এর গল্প’ নাটকের ১৪০ পর্বটি। কাজটি সবার পছন্দ হয়েছিলো। এরপর বেশ কিছু বিজ্ঞাপনের কাজ করি, এভাবেই শুরু।

শুধু কী ক্যামেরার পেছনেই কাজ করতে চান?

আমি ক্যামেরার পেছনেই কাজ করতে চাই। সামনে আসার কোনো ইচ্ছে নেই। তারপরও হুট করে চলে এসেছিলাম ২০১৫ সালের দুটির নাটকে। অনিমেষ আইচের ‘পায়ের নিচে পিচ্ছিল স্বর্গ’ নাটকে মোশাররফ ভাইয়ের (অভিনেতা মোশাররফ করিম) অনুরোধে কাজটি করা। এরপর আরও একটি নাটকে অভিনয় করা হয়।

চলচ্চিত্র নির্মাণে আপনাকে কবে দেখা যাবে?

সব ঠিক থাকলে, খুব শিগগিরই চলচ্চিত্র নির্মাণে হাত দেওয়া হবে। কথা চলছে, চূড়ান্ত হলেই সংবাদটি জানাব।

advertisement