advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

অফিস সহকারীর সঙ্গে যৌনতার ভিডিও ফাঁস, ওএসডি হচ্ছেন সেই ডিসি

২৫ আগস্ট ২০১৯ ০০:৫৬
আপডেট: ২৫ আগস্ট ২০১৯ ১১:৪৪
advertisement

দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া (ওএসডি) হচ্ছে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরকে। নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে তার ‘অন্তরঙ্গ মুহূর্তের’ একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা জনপ্রশাসন।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন গতকাল শনিবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘জামালপুরের ডিসিকে ওএসডি করছি। এর প্রক্রিয়া চলছে। আগামীকাল প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড এবং ২৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ডের দুটি ভিডিওতে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরকে তার নারী অফিসসহকারীর সঙ্গে বেশ অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা গেছে। ভিডিও দুটি ভাইরাল হওয়ার পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে।

আলোচনার পাশাপাশি গণমাধ্যমগুলোতে এ ব্যাপারে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে। যদিও ওই ভিডিওটি সম্পর্কে জানতে চাইলে ডিসি আহমেদ কবীর দৈনিক আমাদের সময় অনলাইন’কে বলেন, ‘হ্যাঁ, জেনেছি।’ কী জেনেছেন, উত্তরে ডিসি বলেন, ‘আমি দেখেছি।’ এ সময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, একটি পক্ষ তার থেকে টাকা চেয়েছিল। তারাই ওই ভিডিও ছড়াতে পারে।

গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে ডিসির আপত্তিকর ভিডিওটি পোস্ট কর হয়। এর পরপরই ডিসির এমন কর্মকাণ্ড সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় তোলে। তবে গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে ওই আইডিতে আর ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। কিন্তু এর মধ্যেই ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওটি সম্পর্কে ডিসি আরও বলেন, ‘এটা কোথায়, এটা কীভাবে করেছে আমি জানি না। একটা হ্যাকার গ্রুপ অনেক দিন ধরেই আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করেছিল, টাকা-পয়সা চাচ্ছিল, আমার ক্ষতি করবে ইত্যাদি। তার হয়তো ফেক আইডি খুলে এগুলো করেছে।’

ভিডিও ধারণের স্থানটি কোথায়, এমন প্রশ্ন করার সঙ্গে সঙ্গে ডিসি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। পরে মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ধরেননি।

এ ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে বলে ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘জামালপুরের ডিসির আপত্তিকর বিষয় নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিভাগীয় কার্যালয় থেকে তদন্ত করা হচ্ছে। বিষয়টি যাচাই করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

advertisement