advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভারতের পাশে দাঁড়াচ্ছে জাপান

অনলাইন ডেস্ক
১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৭:৪৪ | আপডেট: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২২:২৭
ল্যান্ডার বিক্রম
advertisement

ভারতের চন্দ্রযান-২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের চন্দ্রপৃষ্ঠে সঠিক অবতরণ সফল না হলেও আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই জাপানের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে চন্দ্রাভিযানের পরিকল্পনা করেছে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো)। আজ মঙ্গলবার ভারতে জাপানের রাষ্ট্রদূত কেনজি হিরামাৎসু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ইন্ডিয়া টাইমসের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে ঠিক হয়েছে পরবর্তী অভিযানে ল্যান্ডারের সঠিক অবতরণের জন্য জাপানের কাছ থেকে প্রযুক্তিগত সাহায্য নেবে ভারত। সেই অভিযানে ব্যবহার করা হবে জাপান এরোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সির (জেএএক্সএ) তৈরি স্মার্ট ল্যান্ডার ফর ইনভেস্টিগেশন অফ মুন (এসএলআইএম) প্রযুক্তি।

ভারতে জাপানের রাষ্ট্রদূত কেনজি হিরামাৎসু বলেন, ‘চন্দ্রাভিযানে ভারতের ধারাবাহিকতা বজায় থাকার বিষয়ে আমরা নিশ্চিত। সেই পথে তার সঙ্গী হতে চায় জাপানও।' ২০২০ সালের গোড়ার দিকে এই যৌথ অভিযান বাস্তবায়িত হবে।’

যৌথ চন্দ্রাভিযানের উদ্দেশে ২০১৬ সালে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করে দুই দেশের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে সেই অনুযায়ী কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। ২০১৮ সালে যৌথ অভিযান সংক্রান্ত প্রাথমিক সমীক্ষার কাজও সম্পূর্ণ হয়েছে।

জানা গেছে, পৃথিবীর বিজ্ঞানীদের নির্দিষ্ট স্থানে নিখুঁত ল্যান্ডিংয়ের জন্য বিশ্বে এসএলআইএম-এর মতো প্রযুক্তি এর আগে আবিষ্কৃত হয়নি। এই প্রযুক্তি ছাড়াও ১০০ মিটার উচ্চতা থেকে সফট ল্যান্ডিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় নেভিগেশন গাইডেন্স সেন্সর ও গাইডেন্স অ্যালগোরিদমসও জোগাবে জাপান।

দীর্ঘ ৪৭ দিনের যাত্রা শেষে গত শুক্রবার দিবাগত রাতে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নামার কথা ছিল চন্দ্রযান-২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের। কিন্তু একেবারে শেষ মুহূর্তে থমকে যায় ভারতের স্বপ্ন, চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২.১ কিলোমিটার দূরে থাকতে বিক্রমের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। গত শুক্রবার রাত ১টা ৫৫ মিনিটের পর এটি নিখোঁজ হয়।

মনে করা হচ্ছে, সফট ল্যান্ডিং প্রক্রিয়া ব্যর্থ হওয়ায় চাঁদের পিঠে সজোরে আছড়ে পড়ার কারণেই যোগাযোগ ব্যবস্থায় গন্ডগোল দেখা দিয়েছে।

advertisement