advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভুয়া খবরে নৌকা থেকে তরুণীসহ আটক ১৭, তারপর...

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি
১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২১:৪৭ | আপডেট: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০৯:৪৯
ভুয়া খবরে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার ঘাট এলাকা থেকে আটক হন ৮ তরুণীসহ ১৭জন। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার কয়েকজন মেম্বার কিছু তরুণীসহ ‘পিকনিকের উদ্দেশে নৌকা নিয়ে বের হয়েছেন’; এমন খবর পান ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) নাজমুল হক। পরে উপজেলার ভাঙ্গুড়া ঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি নৌকা থেকে ৮ তরুণীসহ ১৭জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন তিনি।

কিন্তু ওই নৌকা কোনো পিকনিকের নয়, এমনকি খবরের কোনো সত্যতা না থাকায় তাদের ছেড়ে দেন তিনি। আজ বুধবার দুপুরে উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়নের হরিহরপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, দুপুরে গুমানী নদী দিয়ে নৌকার মাধ্যমে আটকৃতরা চাটমোহর উপজেলার সাইকোলা ইউনিয়ন থেকে নৌকাযোগে বাঘাবাড়ি যাচ্ছিলেন। দুপুর ২টার দিকে উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়নের হরিহরপুর এলাকার গুমানী নদীর ঘাট থেকে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

পুলিশ জানায়, কয়েকজন মেম্বারের নেতৃত্বে ৮ তরুণীসহ ৬০-৭০জনের একটি দল বিনোদনের উদ্দেশে নৌকা ভ্রমণে বের হয়েছে, ভাঙ্গুরা থানায় এমন খবর দেন সহকারী পুলিশ সুপার সজীব শাহরিন। নৌকায় অনৈতিক কাজ হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

পরে থানায় ওসি নাজমুল হকের নেতৃত্বে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) কামরুল ইসলাম মুকিম তাদের সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে হরিহরপুর এলাকার গুমানী নদীর ঘাট এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় ৮ তরুণীসহ ১৭জনকে আটক করে নিয়ে আসেন তারা। থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে পুলিশ জানতে পারে আটককৃতরা ওই নৌকাযোগ নিজ নিজ গন্তব্যে যাচ্ছিলেন। নৌকাটিও পিকনিকের নয়। আর ছোট নৌকায় ৬০-৭০ জন মিলে কোনো ধরনের বিনোদন করতেও পারবে না। পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি (তদন্ত) নাজমুল হক বলেন, ‘সহকারী পুলিশ সুপার সজীব শাহরিন তার কাছে গোপনে খবর পাঠান, উপজেলার কয়েকজন মেম্বার মেয়ে নিয়ে প্রমোদে বেরিয়েছেন। তার দেওয়া খবরের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা অভিযান চালাই এবং কয়েকজন তরুণীসহ ১৭ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসি। পরে থানাতেই তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘অভিযানে ওই নৌকায় ৬০ থেকে ৭০ জনের একটি দলকে পাওয়া যায়। কিন্তু নৌকাটি কোনোভাবে পিকনিক করার মতো নয়। সেখানে অনৈতিক কাজও করা যেত না। আটক ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদের পর অভিযোগের কোনো সত্যতা না পেয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’

advertisement