advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

টেস্টে অনীহা সাকিবের

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০৪
advertisement

বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। সম্প্রতি তার নেতৃত্বে আফগানিস্তানের মতো নবীন দলের কাছে বাজেভাবে টেস্ট হেরেছে টাইগাররা। সংবাদ সম্মেলনে সাকিব জানিয়েছেন, অধিনায়কত্ব করতে না হলেই তার জন্য ভালো হয়। গতকাল বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানালেন, টেস্টের ব্যাপারে আগ্রহ কম সাকিবের। তিনি মনে করেন, এ কারণেই নেতৃত্বের প্রতি তার অনীহা।

সাকিবের হাতে টেস্টের নেতৃত্বের ঝা-া ওঠে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে। তিনি টেস্টের পাশাপাশি টি-টোয়েন্টি দলেরও অধিনায়ক। টেস্টে নেতৃত্ব নিয়ে সাকিবের অনীহার কারণে বোর্ডের ভাবনা জানাতে গিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘টেস্টের ব্যাপারে বেশ কিছু দিন থেকে ওর আগ্রহ তেমন নেই। আপনারা যদি দেখেন আমাদের দলগুলো যখন বাইরে যাচ্ছিল তখন টেস্টের সময় সে একটু ব্রেক চায়। ন্যাচারালি ওর আগ্রহটা হয়তো কম। তবে অধিনায়কত্ব নিয়ে কখনো শুনিনি, আমরা কখনো শুনিনি যে অধিনায়কত্ব নিয়ে ওর আগ্রহ কম আছে। তবে অধিনায়ক হলে তো টেস্ট খেলতেই হবে। অধিনায়ক না হলে না খেলেও পারা যায়। তাই ন্যাচারালি হয়তো এ কারণে অধিনায়কত্বের কথাটি এসেছে। ও অনেক সার্ভিস দিয়েছে, আমরা মনে করি সে হলো সেরা অধিনায়ক। এখন পর্যন্ত সে আমাদের কিছু বলেনি, মিডিয়াতে বলেছে যে যদি থাকি কিংবা বোর্ডের সঙ্গে কথা বলতে হবেÑ এ ধরনের একটি কথা। আমি গতকাল ওর সঙ্গে বসেছিলাম, কিন্তু সেখানে এমন কোনো আলাপ আলোচনা হয়নি।’

আফগানিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে বিবর্ণ ছিলেন মুশফিক, মাহমুদউল্লাহর মতো সিনিয়র খেলোয়াড়রা। অনেকেই এদের ‘শেষ’ দেখছেন। তবে বিসিবি সভাপতি এখনো সিনিয়র ক্রিকেটারদের ওপর আস্থা রাখছেন। নাজমুল হাসান বলেন, ‘আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি আমাদের এই অবস্থা না। এটি আমাদের আসল চিত্র না। আমাদের দলে এখন তামিম নেই, কিন্তু দেখেন সাকিব, মুশফিক, রিয়াদের মতো খেলোয়াড় আছে। এই মুশফিক বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান। তামিম সেরা ওপেনার বাংলাদেশের। সাকিব বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়। এ বিশ্বকাপে ও ছিল সেরা খেলোয়াড় বলে আমি মনে করি। রিয়াদ একজন অসাধারণ খেলোয়াড়। বহু ম্যাচ সে আমাদের জিতিয়েছে। এরা কেউ শেষ হয়ে যায়নি। অফ ফর্ম তো থাকতেই পারে। এদেরকে এখন বাদ দিয়ে নতুন খেলোয়াড় আনতে হবে এমন কোনো চিন্তাই আমার মাথায় আসে না। হয়তো অনেকেই ভাবছেন যে তারা শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু না, আমি এখনো মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি যে তামিম, সাকিব, মুশফিক, রিয়াদ এরা যে কোনো দলের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করতে পারে। এদের সঙ্গে সৌম্য, লিটন, সাব্বিরদের মতো খেলোয়াড়দের... মোস্তাফিজের কথা তো না বললে চলে না। তারা অসাধারণ খেলোয়াড়। মাশরাফিÑ যাকে নিয়ে মিডিয়াতে অনেক, আসলে মিডিয়া না, ফেসবুকে কিংবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক কথাবার্তা হয়েছে। আরে এই মাশরাফিই আমাদের কম ম্যাচ জেতায়নি। ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতিয়ে নিয়ে এসেছে, অসাধারণ খেলেছে মাশরাফি। একটি বিশ্বকাপে একটু খারাপ খেলেছে, মনে হয় যেন কী না কী হয়ে গেল। এত তাড়াতাড়ি কাউকে ওঠানো উচিত না, কাউকে ফেলেও দেওয়া উচিত না।’

advertisement
Evall
advertisement