advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এখনই ওষুধ লিখে দিতে হবে বলে চিকিৎসককে জুতা নিক্ষেপ

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৭:০১ | আপডেট: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২০:৪২
advertisement

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক কাজী ফজলে রাব্বী শিহাবকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে। এক রোগী চিকিৎসা নিতে গিয়ে তাকে জুতা নিক্ষেপ করেন। আজ সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় হাসপাতালের বর্হিবিভাগে এ ঘটনা ঘটে।

হাসপাতালের স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা. আসাদুজ্জামান এ ঘটনায় বাদী হয়ে ধামইরহাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার পর লাগাতার কর্মবিরতি ঘোষণা করেছেন হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

লাঞ্ছনার শিকার ডা. কাজী ফজলে রাব্বী শিহাব জানান, সকাল থেকে তিনি দায়িত্ব পালন করছিলেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জান্নাতুন নামে এক রোগী লাইন ছাড়াই তার দুই বোনকে নিয়ে চিকিৎসকের কক্ষে ঢুকে পড়েন। চিকিৎসক তখন ওই রোগীকে এভাবে লাইন ভেঙে রুমে ঢোকা ঠিক হয়নি বলে জানান।

ফজলে রাব্বী বলেন, ‘আমি কথাটা বলার পর ওই রোগী আমাকে বলেন, “আমাদের চিনেন, আমাদের পাওয়ার কত জানেন, এখনই ওষুধ লিখে দিতে হবে।” পরে আমি তাদের কাছে সমস্যার কথা জানতে চাই।’

এ সময় জান্নাতুন ডা. রাব্বীর কাছে কৃমির ওষুধ চান। সাপ্লাই নাই জানালে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন এবং গালাগালি শুরু করেন। একপর্যায়ে পা থেকে জুতা খুলে রাব্বীর দিকে ছুঁড়ে মারেন।

জানা গেছে, জান্নাতুনের বাবার নাম আবুল কাশেম। তারা উত্তর চকযদু গ্রামের বাসিন্দা। ঘটনার পর অন্যান্য রোগীরা ক্ষিপ্ত হলে জান্নাতুন তার দুই বোনকে নিয়ে দ্রুত সেখান থেকে চলে যান।

ঘটনার পর ধামইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামান বিকেল ৩টায় জরুরিভিত্তিতে সকল চিকিৎসক-কর্মচারীদের নিয়ে জরুরি আলোচনায় বসেন। এ সময় তিনি জানান, জুতা ছুঁড়ে মারার ঘটনা তারা বরদাস্ত করবেন না। ঘটনায় সুরাহা ও উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য আউটডোরে বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পরিচালনা করবেন।

ধামইরহাট উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুম আলী বেগ জানান, হাসপাতালে ওষুধের সাপ্লাই না থাকায় চিকিৎসককে বিনা অপরাধে জুতা ছুঁড়ে মারার মতো ন্যক্কারজনক ঘটনা মেনে নেওয়া হবে না। অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। লাঞ্ছনাকারীকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ধামইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকিরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

advertisement