advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পরিস্থিতি দেখতে রাখাইনে রোহিঙ্গা প্রতিনিধি দল পাঠাতে চায় চীন

টেকনাফ প্রতিনিধি
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০৪
advertisement

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশে আশ্রয়রত রোহিঙ্গাদের একটি প্রতিনিধি দলকে সেখানে পাঠাতে চায় চীন। গতকাল সোমবার সকালে টেকনাফের ২৬ নম্বার শিবিরের সিআইসি কার্যালয়ে রোহিঙ্গা নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং এ প্রস্তাব দেন। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া তরান্বিত করতে রোহিঙ্গারা যাতে রাখাইনের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে আশ্বস্ত হতে পারেন সে জন্যই এমন উদ্যোগ নিতে চীন আগ্রহী বলে জানান রাষ্ট্রদূত।

রোহিঙ্গা নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে চীনের রাষ্ট্রদূত জিজ্ঞেস করেন, কী করলে তারা মিয়ানমারে ফিরে যাবেন। জবাবে রোহিঙ্গা নেতারা জানান, মিয়ানমারের নাগরিকত্ব, কেড়ে নেওয়া জমি ফেরত ও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা পেলেই তারা স্বেচ্ছায় দেশে ফিরে যাবেন। তারা বলেন, মিয়ানমারে এখনো রোহিঙ্গাদের জন্য

শান্তির পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। সে দেশে বিবদমান গ্রুপের মধ্যে সংঘাত লেগে আছে। এখনো যেসব রোহিঙ্গা সে দেশে রয়েছে তাদের ওপর নির্যাতন চলছে। ২০১২ সালে আকিয়াবে ১ লাখ ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে কয়েক মাসের কথা বলে নির্দিষ্ট ক্যাম্পে রাখা হলেও এখনো তারা একই অবস্থায় রয়ে গেছে। এ পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে ফিরে গেলে আমাদেরও একই পরিণতি হবে বলে আশঙ্কা সবার।

এ সময় রাষ্ট্রদূত রাখাইনের বর্তমান পরিস্থিতি দেখতে রোহিঙ্গাদের একটি গ্রুপকে মিয়ানমার পাঠালে তারা যাবেন কিনা তা জিজ্ঞেস

করেন। রোহিঙ্গা নেতারা এতে সম্মতি দেন। রাষ্ট্রদূত তাদের বলেন, রাখাইনে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের পাঠানো হলে গ্রুপের প্রতি সদস্যকে দুটি মোবাইল ফোন সেট দেওয়া হবে। একটি সেট ওই সদস্য নিজের কাছে রাখবেন ও অপরটি দিয়ে যাবেন পরিবারকে। যদি মিয়ানমারে পরিস্থিতি ভালো মনে হয়, তা হলে ফোনে সে তথ্য পরিবারকে জানাবেন। এ ছাড়া প্রতিনিধিরা বাংলাদেশে ফিরে অন্য রোহিঙ্গাদের বোঝানোর পাশাপাশি পরিবার নিয়ে দেশে ফিরে যেতে পারবেন।

মতবিনিময় শেষে এদিন রাষ্ট্রদূত শালবন শিবিরে রোহিঙ্গাদের আশ্রয়স্থলগুলো ঘুরে দেখেন ও তাদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে তিনি শিশুদের মধ্যে কিছু স্কুল ব্যাগ ও খেলার সামগ্রী বিতরণ করেন।

এর আগে সকাল ১০টার দিকে চীনের রাষ্ট্রদূত টেকনাফের কেরুনতলী ট্রানজিট ঘাট পরিদর্শন করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (অতিরিক্ত) শামসুদ্দৌজা নয়ন, নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরের ইনচার্জ (সিআইসি) আবদুল হান্নান, জাদিমুরা ও শালবাগান শিবিরের ইনচার্জ মোহাম্মদ খালিদ হোসেনসহ অন্য কর্মকর্তারা।

লি জিমিংয়ের এক প্রশ্নের জবাবে ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শামসুদ্দৌজা নয়ন বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য বাংলাদেশে প্রস্তুত রয়েছে। মিয়ানমার চাইলে যে কোনো মুহূর্তে প্রত্যাবাসন শুরু করা যাবে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে সুইডেনের প্রতিনিধি দল

বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত চারলোটা সিলিটার, দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনের জন্য গতকাল কক্সবাজার পৌঁছেছে। পরে বিকাল ৫টার দিকে প্রতিনিধি দলটি আরআরআরসি মাহবুব আলম তালুকদারের সঙ্গে বৈঠক করে। এ ছাড়া সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে একটি হোটেলে তারা জাতিসংঘের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, স্থানীয় সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও কথা বলেন। আজ সকালে উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবে প্রতিনিধি দলটি।

advertisement
Evall
advertisement