advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘আমাদেরও একটু কাভারেজ দিয়েন’

মামুন হোসেন
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০৫
advertisement

অভিনন্দন বার্তায় বিরক্ত নন, তবে শুনতে শুনতে একেবারে ক্লান্ত রোমান সানা। এবার অভিনন্দনের সঙ্গে বাড়তি পাওনা যোগ হয়েছে। বিমানবন্দরে পা রাখামাত্রই পেয়েছেন ফুলেল শুভেচ্ছা; সঙ্গে মিষ্টির স্বাদও নিয়েছেন। এশিয়া কাপ ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং টুর্নামেন্টে (স্টেজ-৩) স্বর্ণ জিতে দেশের মুখ উজ্জ্বল করেছেন দেশসেরা আরচার রোমান। কাল ফিলিপাইন থেকে ঘরে ফেরা সোনার ছেলেকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। শুধু স্বর্ণজয়ী রোমানই নন; দলগত ও মিশ্র দ্বৈতে পদক জেতা দলের অন্য সদস্যরাও পেয়েছেন উষ্ণ অভিনন্দন।

জীবনে শুধু অভিনন্দনই পেয়ে গেলেন রোমানরা। এশিয়া কাপে এর আগে স্বর্ণ জেতার ইতিহাস নেই বাংলাদেশের কোনো আরচারের। অন্য ইভেন্টেও এশিয়ান পর্যায়ে সাফল্য প্রায় শূন্যের কোঠায়। বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং কাভারেজপ্রাপ্ত ক্রিকেটও বহু বছর ধরে এশিয়া কাপ খেলছে। বেশ কয়েকবার ফাইনালে খেলেও কাপ জিততে পারেনি। গত বছর মেয়েরা সেই বন্ধ্যত্ব দূর করলেও সাকিব, মাশরাফি, মুশফিকরা এখনো ব্যর্থ। তার পরও কাভারেজে পিছিয়ে নেই ক্রিকেট। রোমানরা বিশ^ আসর থেকে সাফল্য বয়ে আনলে মেলে অভিনন্দন; মিরাজরা ৫ উইকেট পেলেই হয়ে যান বাড়ির মালিক।

বাড়ি, গাড়ি চান না রোমান। তবে কাভারেজ চান, চান পরিবর্তন। এশিয়া কাপে স্বর্ণ জয়ের আনন্দ ভাষায় প্রকাশের নয় বলেও জানান তিনি। রোমান বলেন, ‘আমরা ক্রিকেট খেললেই বোধ হয় ভালো হতো। আমি যেদিন স্বর্ণ জিতলাম, সেদিন বাংলাদেশ ক্রিকেট দল জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে। দেশের জনপ্রিয় এক পত্রিকায় দেখলাম আমার নিউজটা এক কোনায়, জিম্বাবুয়েকে হারানোর নিউজ অনেক বড় করে দেওয়া। জিম্বাবুয়ের জয়টা বড় নাকি এশিয়া কাপে স্বর্ণ জয়। আপনারা সাংবাদিকরা আছেন বলেই আমরা প্রচার পাচ্ছি। আপনাদের জ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন তুলতে চাই না। তবে যার যতটুকু প্রাপ্য সেই অনুযায়ী মূল্যায়ন করা উচিত। আমাদের আরেকটু ভালোভাবে কাভারেজ দেওয়া উচিত।’

রোমানের সাফল্যের গল্প আসলে লিখে শেষ করা যাবে না। এশিয়া কাপে স্বর্ণ জয়ের আগে অলিম্পিকে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছেন। বিশ^ আরচারি থেকে পদক জয়ের ইতিহাস রচনা করেছেন। সামনে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমস, এশিয়ান গেমস, কমনওয়েলথ, অলিম্পিক থেকেও দেশের জন্য পদক জয়ের স্বপ্নের কথা জানান খুলনার ছেলে রোমান। ১৫ দেশের প্রতিযোগীদের হারিয়ে ফিলিপাইনে এশিয়া কাপে স্বর্ণ জেতেন তিনি। বিশ^ আরচারিতে বর্তমানে ১০ নম্বর র‌্যাংকধারী রোমান। ফাইনালে চীনের যে প্রতিযোগীকে হারিয়ে স্বর্ণ জয়ের রেকর্ড গড়েন তার র‌্যাংকিং ছিল ৪। ফিলিপাইনে কতটা ভালো ছিল রোমানের পারফরম্যান্স এ একটি তথ্যেই অনুমেয়!

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের পৃষ্ঠপোষক ছিল মধুমতি ব্যাংক। প্রতিষ্ঠানটিকে ধন্যবাদ জানান রোমান। একই সঙ্গে আরচারির সব সময়ের বন্ধু পৃষ্ঠপোষক তীর গ্রুপকে স্মরণ করেন স্বর্ণজয়ী এ তারকা। তীর সহযোগিতা করছে বলেই নাকি আরচারিটা ভালোভাবে চালিয়ে যেতে পারছেন। একই সঙ্গে ফেডারেশনের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। দেশের জন্য এত বড় সাফল্য বয়ে আনা রোমান দেশের কাছে কী চানÑ এমন প্রশ্নের জবাবে রোমান বলেন, ‘আমরা তো শুধু অভিনন্দনই পেয়ে যাচ্ছি। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন অভিনন্দনের পাশাপাশি ভালোভাবে বেঁচে থাকার নিশ্চয়তা পায়, অর্থকড়ি পায় সেই ব্যবস্থা করে যেতে পারলেই খুশি।’

ফিলিপাইনে স্বর্ণ জেতার পর পুরস্কার মঞ্চে জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা’ বেজে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে নাকি শরীরের পশম দাঁড়িয়ে গিয়েছিল রোমানের। চোখের কোণে আনন্দাশ্রু খেলা করছিল। এ এক অন্যরকম অনুভূতি যা ভাষায় প্রকাশের নয় বলে জানান রোমান। অলিম্পিকের মঞ্চেও এমন অনুভূতির সৌরভ ছড়াতে চান। সেই লক্ষ্য নিয়েই নাকি এগিয়ে চলেছেন দেশসেরা এ আরচার।

advertisement