advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সরিষাবাড়ীতে চার ঘণ্টা সড়ক ও রেলপথ অবরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, জামালপুর
১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:৩১
advertisement

জামালপুরের সরিষাবাড়ীর আলহাজ জুট মিল চালু ও বকেয়া পরিশোধের দাবিতে চার ঘণ্টা সড়ক ও রেলপথ অবরোধ করে রাখে শ্রমিকরা। গতকাল বুধবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দুই সহস্রাধিক শ্রমিক জামালপুর-সরিষাবাড়ী-ভুয়াপুর সড়ক অবরোধ করে। এ সময় শ্রমিকরা খ- খ- বিক্ষোভ মিছিলসহ প্রধান সড়কের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকার অন্তত ২০টি স্থানে গাছের গুঁড়ি ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা সরিষাবাড়ী রেলস্টেশন এলাকায় রেলপথে অবস্থান নিলে বঙ্গবন্ধু সেতু (পূর্ব) স্টেশন থেকে চট্টগ্রামগামী একটি লোকাল ট্রেন অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

এদিকে বিক্ষোভে পৌরসভার প্রধান সড়ক বন্ধ হয়ে পড়ায় উপজেলার স্বাভাবিক যান চলাচল স্থবির হয়ে পড়ে। দেশের বৃহৎ যমুনা সার কারখানার সার পরিবহনও বন্ধ থাকে। এ সময় বিপুল পরিমাণ থানা ও জিআরপি পুলিশ মোতায়েন ছিল। পরে জেলা প্রশাসক এনামুল হক মিল চালু করতে উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা অবরোধ প্রত্যাহার করেন।

শ্রমিক-কর্মচারী সূত্র জানায়, আলহাজ জুট মিল প্রায় ১৫ কোটি টাকা ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে গত বছরের ২১ জুলাই মধ্যরাতে পূর্বঘোষণা ছাড়াই বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। ১৯৬৭ সালে স্থাপিত এ মিলে দৈনিক প্রায় ১৫ মে. টন পাটের বস্তা, ব্যাগ ও কার্পেটের সুতা প্রস্তুত হতো। মিলটি হঠাৎ বন্ধ হওয়ায় কর্মরত প্রায় চার হাজার শ্রমিক-কর্মচারী বেকার অবস্থায় মানবেতর জীবন-যাপন করছে। এ ব্যাপারে প্রশাসন, সিবিএ নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা বারবার যোগাযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। শ্রমিক-কর্মচারীরা মিল চালুর দাবিতে বিভিন্ন সময় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে আসছে। সর্বশেষ বুধবার আলহাজ জুট মিল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ) সড়ক ও রেলপথ অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেয়। এ সময় শ্রমিকরা খ- খ- বিক্ষোভ মিছিলসহ প্রধান সড়কের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকার অন্তত ২০টি স্থানে গাছের গুঁড়ি ফেলে ও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখে।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রেলক্রসিংয়ে শ্রমিকরা অবস্থান করলে ২৫৪ নম্বর লোকাল ট্রেন প্রায় ঘণ্টাব্যাপী আটকা থাকে। কর্মসূচিতে যমুনা সার কারখানা, পপুলার, এআরএ জুট মিল সিবিএ, শ্রমিক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ ছাত্রসংসদসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ও সংগঠন একাত্মতা ঘোষণা করে।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে আলহাজ জুট মিল সিবিএর সভাপতি তোফাজ্জল হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বক্তব্য রাখেন আলহাজ জুট মিল সিবিএর সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক আবদুল মান্নান, শ্রমিক লীগের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন প্রমুখ।

মিলের শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান বলেন, ‘শ্রম আইন লঙ্ঘন করে কর্তৃপক্ষ পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই মিলটি বন্ধ করেছে। মালিকের কাছে শ্রমিকদের বকেয়া পড়ে আছে দুই কোটি টাকা। নতুন কর্মসংস্থান ও বকেয়া না দেওয়ায় একমাত্র মিলের ওপর নির্ভরশীল শ্রমিক-কর্মচারীরা বর্তমানে বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে।’ শ্রমিকরা দ্রুত বকেয়া পরিশোধ ও মিল চালু না হলে আরও বড় কর্মসূচির হুশিয়ারি দেন।

এদিকে জেলা প্রশাসক শ্রমিকদের দাবি পূরণ করতে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন বলে মুঠোফোনে শ্রমিক নেতাদের আশ্বাস দিলে তারা কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করেন।

সিবিএর সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন জানান, শ্রমিকদের দাবি নিয়ে মালিকের সঙ্গে কথা বলতে জেলা প্রশাসক ২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় চেয়েছেন। তাই আগামী ২৬ তারিখ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করা হয়েছে। সমাধান না হলে পুনরায় কর্মসূচি দেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক এনামুল হক মুঠোফোন বলেন, শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের দাবি পূরণে মালিকপক্ষকে একটি বৈঠকে ডাকব। মিলটি চালু করা সম্ভব না হলেও যেন অন্তত তাদের পাওনা পরিশোধ করা হয় সে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বলা হবে।

advertisement