advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আপনারা অ্যারেস্ট করবেন আমরা কি বসে থাকব : ওমর ফারুক

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:৫৯
advertisement

যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গতকাল গ্রেপ্তারের পর রাতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনারা অ্যারেস্ট করবেন আর আমরা কি বসে থাকব?

যুবলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে অবৈধ ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগের পেছনে ‘ষড়যন্ত্র’ দেখছেন যুবলীগের চেয়ারম্যান। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপনারা বলছেন, রাজধানীতে ৬০টি ক্যাসিনো আছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কি এতদিন আঙুল চুষছিলেন? রাজধানীর যে ৬০টি জায়গায় ক্যাসিনো; সেই ৬০ জায়গার থানাকে অ্যারেস্ট করা হোক। সেই ৬০ জায়গায় র‌্যাবের দায়িত্বে

যারা ছিলেন, তাদের অ্যারেস্ট করা হোক। তিনি আরও বলেন, আমাকে অ্যারেস্ট করবেন? করেন। আমি রাজনীতি করি। আমি একশবার অ্যারেস্ট হব।

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, আমি না হয় অন্যায় করেছি। আপনারা কী করেছেন? আপনারা অ্যারেস্ট করবেন? আমিও বসে থাকব না। আপনাকেও অ্যারেস্ট হতে হবে। কারণ আপনি প্রশ্রয় দিয়েছেন।

উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে ওমর ফারুক বলেন, আপনারা বলছেন, যুবলীগ ক্যাসিনো চালায়। আপনি সাংবাদিক। আপনাকে বলতে হবে, সেই ক্যাসিনোগুলো কোথায়? কারা কারা এর সঙ্গে জড়িত?

যুবলীগে শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে ইতিপূর্বে তৃণমূল থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতাদেরও বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানান ওমর ফারুক। তিনি বলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য পর্যন্ত বহিষ্কার করেছি। কাজ করতে গেলে ত্রুটি থাকবে। যুবলীগ সবচেয়ে সংগঠিত। শৃঙ্খলা কাকে বলে, এ সংগঠনটি তা দেখিয়েছে।

গোয়েন্দা তথ্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে ওমর ফারুক বলেন, গোয়েন্দারা এতই যদি তৎপর হয়, তা হলে এতদিন তারা কী করেছিলেন? পত্রপত্রিকা যদি এতই তথ্য জানে; তা হলে এতদিন তথ্যগুলো তুলে আনেনি কেন? আমি কেন জানলাম না? আমরা কেন জানলাম না? আপনি অতীতে জানতেন। এর পরও লুকিয়ে রেখেছিলেন। কেন?

ব্যর্থতার কথাও স্বীকার করেন যুবলীগ চেয়ারম্যান। বলেন, আমার ব্যর্থতা আছে, অস্বীকার করছি না। আমি প্রতিটি কাজের জন্য হাততালি পাব আর অপকর্মের জন্য নিগৃহীত হব না, তা তো হয় না। আমার প্রশ্ন, হঠাৎ কেন জেগে উঠলেন?

advertisement