advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পুলিশ ও প্রহরীকে বেঁধে ৭ স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি

বরিশাল প্রতিনিধি
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০৮
advertisement

বরিশালের বাকেরগঞ্জে টহল পুলিশ ও নৈশ প্রহরীসহ অন্যদের বেঁধে সাতটি স্বর্ণের দোকানে লুটপাট চালিয়েছে ডাকাতরা। এ সময় ডাকাতদের মারধরে জসিম উদ্দিন নামে বাকেরগঞ্জ থানার এক এএসআই গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে প্রথমে বরিশাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়েছে। গত বুধবার মধ্যরাতে উপজেলার কলসকাঠি বাজারে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার রাত দেড়টার দিকে নদীপথে ২-৩টি স্পিডবোটে একদল ডাকাত কলসকাঠি বাজারের সাতটি স্বর্ণের দোকানে যায়। তারা নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে নৈশপ্রহরী ও দোকানের লোকজনকে ধরে পেছন থেকে হাত বেঁধে ফেলে এবং তাদের একটি ওষুধের দোকানে নিয়ে আটকে রাখে। এ সময় ঘটনাস্থলের কাছাকাছি থাকা বাকেরগঞ্জ থানার একটি টহল দল বাজারে পৌঁছে বিষয়টি টের পেয়ে ডাকাতদের চ্যালেঞ্জ করে। এক পর্যায়ে অভিযান চালানোর সময় টহল দলের নেতৃত্বে থাকা এএসআই জসিম উদ্দিনের মাথায় পেছন থেকে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে ডাকাতরা। তিনি গুরুতর আহত হলে তাকেও হাত বেঁধে ওই ফার্মেসির ভেতর নিয়ে আটকে রাখা হয়। পরে ডাকাতরা বাজারের সাতটি স্বর্ণের দোকানে ঢুকে ৬০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ১০০ ভরির ওপরে রুপা এবং নগদ কয়েক লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। দোকানগুলোর ব্যবসায়ীদের দাবি, লুট হওয়া স্বর্ণ ও রুপার আনুমানিক মূল্য অর্ধ কোটি টাকা।

বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আবুল কালাম জানান, খবর পেয়ে রাতেই আমাদের একাধিক টিম ঘটনাস্থলে গিয়েছিল। কিন্তু আগেই ডাকাত দল লুটপাট করে পালিয়ে যায়। পরে ফার্মেসিতে হাত বাঁধা অবস্থায় এএসআই জসিমসহ ও অন্যদের উদ্ধার করা হয়েছে।

এএসআই জসিমের নেতৃত্বে টহল দলে আরও দুজন পুলিশ সদস্য ছিলেন। ঘটনার সময় এএসআই জসিমকে মারধর করে বেঁধে ফেলা হলেও বাকি দুই কনস্টেবলকে নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে।

কেন তারা ডাকাতদের প্রতিরোধে এগিয়ে আসেননি তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ প্রসঙ্গে ওসি আবুল কালামকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। যদিও পরে ওই দুই কনস্টেবল কলসকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ছিলেন বলে জানান ওসি।

এদিকে গতকাল সকালে বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ডাকাতদের অতিদ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে বলে তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের আশ্বাস দিয়েছেন।

advertisement