advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আ.লীগকে প্রচারে নামাতে মাঠে রাঙ্গা

নজরুল মৃধা রংপুর
২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:৪৫ | আপডেট: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:৪৫
advertisement

রংপুর-৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে লাঙলের প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামাতে মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন জাপা মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা। গতকালের এ বৈঠকে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ বেশ কজন উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না মহানগর জাপার খোদ সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও মনোনয়নবঞ্চিত সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আহমেদ। এ নিয়ে দুদলের নেতাকর্মীদের মাঝেই গুঞ্জন উঠেছেÑ শেষ পর্যন্ত জাপা মহাসচিব অভিমানীদের মাঠে নামাতে পারবেন তো?
এ বিষয়ে মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাফা বলেন, ‘আমি কখনো সিদ্ধান্ত বদলাই না। আগেই বলেছিÑ এ নির্বাচনে আমি যুক্ত হব না। তাই এখন আর কোনো মন্তব্য করতে চাই না। তা ছাড়া বর্তমানে আমি বেশ কিছু শারীরিক সমস্যায় ভুগছি। খুব দ্রুত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাব। নির্বাচনের সময় রংপুরে থাকতে পারব কিনা তা-ও বলতে পারছি না।’
এদিকে নির্বাচনী মাঠ পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, নৌকার সমর্থক ও জাপার বৃহত্তর একটি অংশের নেতাকর্মী নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন। ফলে জাপা প্রার্থীর বিজয় নিয়ে সন্দিহান অনেকেই। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য শুক্রবার বিকালে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন রাঙ্গা। তিনি সবাইকে লাঙ্গল প্রতীকের পক্ষে কাজ করার অনুরোধ জানান। আওয়ামী লীগের উপস্থিত নেতাকর্মীদের রাঙ্গা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি জোটগতভাবে নির্বাচন করছে। আর জোটের প্রার্থী সাদ এরশাদ। তাই তাকে বিজয়ী করার দায়িত্ব সবার। যৌথ প্রচেষ্টায় লাঙ্গল প্রতীককে বিজয়ী করতে হবে।’ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি ম-ল এ সময় বলেন, ‘এ আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আমাদের দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তাই এখানে কোনো প্রশ্ন খাটে না। মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে জোটের প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্য কাজ করবেন।’
বৈঠকে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মনোনয়নবঞ্চিত শফিয়ার রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নাসিমা জামান ববি, মনোনয়নবঞ্চিত রেজাউল ইসলাম মিলনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। তবে আওয়ামী লীগের জেলা সাধারণ সম্পাদক ও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারকারী রেজাউল করিম রাজু ছিলেন না। এ বিষয়ে দলের একাধিক নেতা অবশ্য বলেন, এটি মহানগর আওয়ামী লীগের সভা। রাজু জেলা আওয়ামী লীগের নেতা। তাই তার থাকাটা জরুরি নয়। আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাপার আরেকটি সভা রয়েছে, সেখানে তিনি নিশ্চিয়ই উপস্থিত থাকবেন।’
এদিকে দুপুরে নগরীর অন্য একটি অনুষ্ঠানে রাঙ্গা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আসিফ দলের কেউ নন। অথচ তিনি দলের চেয়ারম্যান প্রয়াত এইচএম এরশাদের ছবি পোস্টারে ব্যবহার করে মানুষের কাছে ভোট চাইছেন। স্বতন্ত্র কোনো প্রার্থী অন্য দলের চেয়ারম্যানের ছবি ব্যবহার করতে পারেন না।’ এ বিষয়ে রাঙ্গা নির্বাচন কমিশনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। মহানগরের অনেক নেতাকর্মীই মাঠে নেইÑ এমন প্রশ্নের জবাবে রাঙ্গা বলেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্তে সাদ এরশাদকে প্রার্থী করা হয়েছে। কেউ এর বিরোধিতা করলে দলীয় ফোরামে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের মৃত্যুর কারণে এ আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। আগামী ৫ অক্টোবর এখানে ভোটগ্রহণ। নির্বাচনে জাতীয় পার্টি এবং বিএনপির রিটা রহমান, এরশাদের ভাতিজা স্বতন্ত্র প্রার্থী আসিফ শাহরিয়ারসহ ছয়জন ভোটে লড়ছেন।

advertisement