advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কলাবাগান ক্লাব সভাপতি ফিরোজ ১০ দিনের রিমান্ডে

আদালত প্রতিবেদক
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:১০
advertisement

অস্ত্র ও মাদক আইনের দুই মামলায় কলাবাগান ক্রীড়াচক্র ক্লাব সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজের ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল শনিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদা আক্তার শুনানি শেষে জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে রিমান্ডের এ আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ধানম-ি থানার এসআই নুর উদ্দিন অস্ত্র মামলায় ১০ দিনের এবং একই থানার এসআই আশিকুর রহমান মাদক মামলায় ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আবেদনে বলা হয়, মামলার বাদী র‌্যাব ২-এর পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মাদ আবদুল হামিদ খান ফোর্স নিয়ে গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে গোপন সংবাদ পান, কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের অফিসকক্ষে অবৈধ অস্ত্র ও মাদক হেফাজতে রেখে মাদক বেচাকেনা চলছে। পরে বিকাল ৪টার সময় সেখানে গিয়ে অফিস ঘেরাও করে রাখেন। এর পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট

গাউছুল আজম ও সাক্ষীদের সঙ্গে নিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে অফিসকক্ষে প্রবেশ করে তল্লাশিকালে অবৈধ একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন ও ৩ রাউন্ড তাজা গুলি এবং ৯৯০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি ফিরোজ জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ অগ্নেয়াস্ত্রের ভয় দেখিয়ে কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের অফিসকক্ষে নিরাপদ অশ্রয় গড়ে তুলে এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজর এড়িয়ে অবৈধ মাদক বেচাকেনাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ করে আসছেন। তাই অবৈধ অস্ত্র ও মাদকের উৎস সম্পর্কে জানতে এবং এর সঙ্গে জড়িত অন্য অপরাধীদের শনাক্তের জন্য আসামিকে ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন।

শফিকুল আলম ফিরোজকে গতকাল দুপুর ২টার দিকে সিএমএম আদালতে হাজির করে হাজতখানায় রাখা হয়। বিকাল ৪টা ৪০ মিনিটে তাকে আদালতে ওঠানো হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান জামিন আবেদনের বিরোধিতা করে রিমান্ড মঞ্জুরের পক্ষে শুনানি করেন। আসামিপক্ষে অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান ও মাসুদ এ চৌধুরী রিমান্ড বাতিল করে জামিনের আবেদন করেন। তারা বলেন, ফিরোজ পরিস্থিতির শিকার। তার কাছ থেকে কোনো অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার হয়নি। তাকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখানো হয়েছে। ২৭ বছর ধরে কলাবাগান ক্লাবের সভাপতিত্ব করে আসা এ ব্যক্তি একটি অবৈধ অস্ত্র ও মাদক নিয়ে ক্লাবে বসে থাকবেনÑ এটি কেউ বিশ^াস করবে না। তাকে তার বিরোধী পক্ষ ফাঁসিয়েছে।

গত শুক্রবার দুপুরে অভিযান শুরুর আগে ক্লাব সভাপতি ফিরোজকে ক্লাব থেকে র‌্যাব ২-এর কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সেখানে কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে তাকে নিয়েই ক্লাবে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তার কক্ষ থেকে ক্যাসিনোয় ব্যবহৃত ৫৬২ পিস চিপস (কার্ড), ৯৯০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট এবং একটি বিদেশি পিস্তল ও ৩ রাউন্ড গুলি জব্দ করেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফিরোজ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর-৫ (শাহরাস্তি-হাজীগঞ্জ) আসনে নৌকার মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন।

advertisement