advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

খুনের আসামি ঢাকায় গ্রেপ্তার, চট্টগ্রামে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত : লক্ষ্মীপুরে আরেক ঘটনায় নিহত ডাকাত

চট্টগ্রাম ব্যুরো ও লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:১১
advertisement

চট্টগ্রামে একটি খুনের মামলার আসামিকে শুক্রবার ঢাকায় গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দিনই তাকে নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রামে। গভীর রাতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ওই আসামি নিহত হয়। এদিকে গতকাল ভোরে লক্ষ্মীপুরে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আরেক ঘটনায় ডাকাত দলের এক সদস্য নিহত হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও থানার জেলেপাড়া এলাকায় শুক্রবার গভীর রাতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মো. রাসেল নামে এক যুবক নিহত হন। তিনি নগরীর চান্দগাঁও থানার দর্জিপাড়া এলাকার মৃত আবুল বশরের ছেলে। তিনি সম্প্রতি বড় ভাইয়ের কাছে চাঁদা চেয়ে না পেয়ে ছোট ভাইকে খুনের মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় নগরীর চান্দগাঁও থানার সানোয়ারা আবাসিক এলাকার পাশে দর্জিপাড়ায় মো. জিয়াদ (২৩) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়। এ ঘটনায় রাসেলকে প্রধান আসামি করে তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন নিহতের বড় ভাই জাহেদ। এ মামলায় ১৯ সেপ্টেম্বর আরমান নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশ।

চান্দগাঁও থানার ওসি আবুল কালাম জানান, হত্যাকা-ের পর রাসেল ঢাকায় পালিয়ে যায়। গত শুক্রবার ঢাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছে অবৈধ অস্ত্র রয়েছে বলে জানায়। রাতে তাকে নিয়ে দর্জিপাড়ার পাশে জেলেপাড়ায় অস্ত্র উদ্ধারে গেলে তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর গুলিবর্ষণ করে। পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়। এতে রাসেল ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ হয়। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শাকচরের ভোলা কমিশনারের ফিশারিজ এলাকায় গতকাল ভোরে দুদল ডাকাতের মধ্যে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়। নিহতের নাম আরিফ হোসেন। সে স্থানীয় শাকচর গ্রামের বাসিন্দা শুক্কুর আলীর ছেলে।

পুলিশ সূত্র জানায়, সদর উপজেলার শাকচর এলাকায় ডাকাতদের দুপক্ষের মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছিল। খবর পেয়ে টহল পুলিশ সেখানে গিয়ে ৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়লে ডাকাতরা পালিয়ে যায়। পরে পরিত্যক্ত ইটভাটায় একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, ৩ রাউন্ড গুলি ও দুটি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

advertisement